France-England: এমবাপের সঙ্গে নয়, লড়াইটা ফ্রান্স বনাম ইংল্যান্ডের: সাউথগেট

মুনাল চট্টোপাধ্যায়, দোহা

‌ইংল্যান্ড ফুটবল দলের বড় ও শেষ সাফল্য ’‌৬৬ বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হওয়া।

তারপর ইংল্যান্ডের সঙ্গে জড়িয়ে গেছে তীরে এসে তরী ডোবার দুর্ভাগ্য বারবার। গত রাশিয়া বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে গ্যারেথ সাউথগেটের দলের দুরন্ত দৌড় থেমে যায় ক্রোয়েশিয়ার কাছে হেরে। গত ইউরো কাপের ফাইনালে ঘরের মাঠে ইতালির কাছে টাইব্রেকারে হারটা ইল্যান্ডবাসী এখনও হজম করে উঠতে পারেননি। নিজের ফুটবলজীবনের মতো কোচিং জীবনেও চোকার্স তকমা সেঁটে যাওয়ার হাত থেকে বাঁচার এখন একটাই সুযোগ সাউথগেটের সামনে। হট ফেবারিট ফ্রান্সকে হারিয়ে কাতার বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে উঠে ট্রফি জেতার অন্যতম দাবিদার হওয়া। শুরু থেকে যে ধারাবাহিকতা নিয়ে খেলছে ইংল্যান্ড, তাতে ইংল্যান্ড ফুটবলপ্রেমীরা হ্যারি কেন, বিলিংহাম, সাকা, র‌্যাশফোর্ড, গ্রিলিশ, গোলকিপার পিকফোর্ডদের নিয়ে স্বপ্ন দেখতেই পারেন। 

ইংল্যান্ড বিশ্বকাপ জিততে পারে, এই বিশ্বাসটা নিজের ফুটবলারদের মধ্যে জাগাতে দিনরাত কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন কোচ সাউথগেট। তাঁর সাফ কথা, ‘আমার ফুটবলাররা অন্যদের তুলনায় কম দক্ষ নয়। শুধু দরকার ওদের মেন্টাল ব্লকটা কাটানোর। মোক্ষম সময়ে সেরা দিতে নিজেদের স্থির রাখা। শিবিরে সেই আত্মবিশ্বাস জোগানোয় জোর দিচ্ছি। বর্তমানে বিশ্বে ইংল্যান্ড সম্পর্কে সমীহ ভাব বেড়েছে, দলের ওপর বিশ্বাসও। পরপর দুটো বড় প্রতিযোগিতার সেমিফাইনাল ও ফাইনালে খেলায় ইংল্যান্ডের প্রতিযোগিতামূলক চরিত্র প্রকাশ পেয়েছে। চার বছর আগে এটা ছিল না। একটা দল হিসেবে ফুটবলাররা লড়াইটা তুলে ধরায় এই স্বীকৃতিটা মিলছে। মনে করি, আমাদের যা ক্ষমতা তাতে কাতারে শুধুমাত্র কোয়ার্টার ফাইনাল পর্যন্ত পৌঁছে খুশি থাকা উচিত নয়। আমাদের আরও এগনো উচিত ফ্রান্সকে হারিয়ে। ওরা যতই শক্তিশালী হোক।’‌ 
এমবাপে বিপজ্জনক, তবে শুধুমাত্র তাঁকে নিয়েই ভাবতে নারাজ সাউথগেট। ইংল্যান্ড কোচ বলেন, ‘‌এমবাপেকে আটকানোর কথা ভাবলেই হবে না। খেলাটা এমবাপের সঙ্গে ইংল্যান্ডের নয়। ফ্রান্সের সঙ্গে ইংল্যান্ডের। ফ্রান্সের কোচ দেশঁ দলটাকে এক সুতোয় বেঁধেছেন। সবচেয়ে বড় কথা, শুধু উইংয়ে নয়, মাঝখান দিয়েও চকিত গতিতে আক্রমণ হেনে প্রতিপক্ষকে বেসামাল করে ওরা। তাই এ ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে। ভুললে চলবে না এমবাপের পাশাপাশি জিরু গোলে ফিরেছে, দেশের জার্সিতে ৭০–এর বেশি ম্যাচ খেলা গ্রিজম্যানের মতো অভিজ্ঞ ফুটবলার রয়েছে। তাদের কথা সমানভাবে মাথায় রাখতে হবে। নইলে এমবাপেকে শুধু নজরে রাখতে গিয়ে বাকিরা বাজিমাত করে চলে যাবে।’‌ বাড়িতে ডাকাতির পর সেই সমস্যা মিটিয়ে রহিম স্টার্লিং দলের সঙ্গে যোগ দিলেও গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচের আগে অনুশীলন মিস করায় সাউথগেটের পরিকল্পনায় আপাতত তিনি নেই।‌ 

ফ্রান্সের মোকাবিলার আগে সাজঘরে ফুটবলারদের দুটো পরামর্শ বিশেষভাবে দিয়েছেন সাউথগেট। ইংল্যান্ডের কোচ বলেছেন, ফ্রান্স পাওয়ার গেম খেলবে। তাতে ম্যাচে উত্তেজনা তৈরি হতে পারে। কোনওরকম প্ররোচনায় পা দিলে বিপদ। অনর্থক হলুদ বা লাল কার্ড দেখলে চলবে না। আর আক্রমণভাগের ফুটবলারদের উদ্দেশ্যে পরামর্শ, গোলের সুযোগ আসবে। মাথা ঠান্ডা রাখতে হবে সেটা ইংল্যান্ডের জালে জড়াতে।

ইংল্যান্ড গোলকিপার পিকফোর্ডের ওপর কোচ সাউথগেট থেকে ফুটবলারদের বিরাট ভরসা ‘‌ফরাসি বিপ্লব’‌ থামাতে। তবে তা নিয়ে কোনও চাপ অনুভব করছেন না পিকফোর্ড। ‌‌‌

আকর্ষণীয় খবর