আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ টেস্ট ক্রিকেটে পাকিস্তানের আত্মসমর্পণ আবারও প্রকাশ পেল। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুই টেস্ট সিরিজে ইনিংস ব্যবধানে পরাজিত আজহার আলীর নেতৃত্বাধীন দলটি। ব্রিসবেনের পর দিনরাতের অ্যাডিলেড টেস্টেও ইনিংস ব্যবধানে হারল পাকিস্তান। ডেভিড ওয়ার্নারের রেকর্ড গড়া ট্রিপল সেঞ্চুরিতে ৫৮৯ রানে ইনিংস ঘোষণা করে অজিরা। জবাবে দুই ইনিংস মিলিয়েও ৪৮ রান কম করে পাকিস্তান। আর পাকিস্তানের এমন পরাজয় কোন নির্দিষ্ট দেশে টেস্টে টানা হারের রেকর্ড থেকে মুক্তি পেল বাংলাদেশ।
ব্রিসবেন এবং অ্যাডিলেড টেস্টে ইনিংস ব্যবধানে পরাজিত হওয়ার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের লজ্জার রেকর্ড ভেঙে বিশ্ব রেকর্ড গড়েছে পাকিস্তান। উল্লেখ্য, ভারতের বিপক্ষে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে ২০০০ সালে টেস্ট অভিষেক বাংলাদেশের। এরপর ঘরের মাঠে ২০০৪ সাল পর্যন্ত কোন জয়ের মুখ দেখেনি বাংলাদেশ। তখন টানা ১৩ টেস্টে পরাজয় হয়েছে তাদের। ২০০৫ সালে জিম্বাবোয়ের বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্ট জয়ের মধ্য দিয়ে সংখ্যাটা ১৩টিতেই থামে। আর ১৯৯৯ সাল থেকে এখনও পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে জয়ের দেখা পায়নি পাকিস্তান। অস্ট্রেলিয়ার মাঠে টানা ১৪টি টেস্ট হারের রেকর্ড গড়েছে তারা। এতদিন এই লজ্জার বিশ্ব রেকর্ডটি বাংলাদেশের দখলে ছিল। ২০০১ থেকে ২০০৩ সাল পর্যন্ত ঘরের মাঠে টানা ১৩টি টেস্ট হারে বাংলাদেশ ক্রিকেট টিম।
এদিকে অস্ট্রেলিয়া সফরে ব্রিসবেনে ইনিংস ও ৫ রানের ব্যবধানে হেরে যায় পাকিস্তান। সিরিজের শেষ টেস্টে অ্যাডিলেডে ইনিংস ও ৪৮ রানে পরাজিত পাকরা। অ্যাডিলেড টেস্টেও ইনিংস ব্যবধানে হেরে ছাড়িয়ে যায় বাংলাদেশকে, ১৯৯৯ সাল থেকে এখনও পর্যন্ত টানা ১৪ হার অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে। এখন এই রেকর্ড কোথায় গিয়ে থামে সেটাই দেখার বিষয়। ১৫ বছরের ব্যবধানে বাংলাদেশ পেল মুক্তি। টানা ১৩ বার হারে বাংলাদেশের অবস্থান এখন দ্বিতীয়তে। অন্যদিকে তালিকার তৃতীয় স্থানে আছে আছে ভারত। তারাও ১৯৪৮ সাল থেকে ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে হারে টানা ৯ টেস্টে। আগামী ১১ এবং ১৯ ডিসেম্বর রাওলপিন্ডি ও করাচিতে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ঘরের মাঠে দুটি টেস্ট ম্যাচ খেলতে নামছে পাকিস্তান। সেখানের জল কোনদিকে যায় সেদিকেই তাকিয়ে ক্রিকেট বিশ্ব। 

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top