আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ আইপিএলে তাঁর ফর্ম একেবারেই ভাল নয়। এই মরশুমে তাঁর দল চেন্নাই সুপার কিংস পয়েন্ট টেবিলে একেবারে তলানিতে। কিন্তু তাতে কী! মহেন্দ্র সিং ধোনির জনপ্রিয়তা একেবারেই কমেনি। দেশের বাইরে এবার বিদেশের লিগ থেকেও ডাক আসছে মাহির। তাও আবার কোনও ছোটখাটো লিগ নয়। খোদ বিগ ব্যাশ লিগের একাধিক দল তাঁকে সই করাতে চায়। এমনটাই দাবি করা হয়েছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার সরকারি ওয়েবসাইটে।
এবছর বিগ ব্যাশ লিগের নিয়ম বদলেছে। আগে যেখানে মাত্র ২ জন বিদেশি ক্রিকেটার এই লিগে খেলতে পারত এবার তেমনটা হবে না। জনপ্রিয়তার স্বার্থে দু’জনের পরিবর্তে এবার ৩ জন বিদেশি ক্রিকেটারকে খেলানোর অনুমতি দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া বোর্ড। সেকারণেই, এবার বিগ ব্যাশের দলগুলি ঝুঁকছে বড় নামের ভারতীয় ক্রিকেটারদের দিকে। তালিকায় আছেন মহেন্দ্র সিং ধোনি, যুবরাজ সিং এবং সুরেশ রায়নার মতো তারকা যারা কিনা ইতিমধ্যেই অবসর নিয়েছেন। আসলে এই তিন তারকাই টি–২০ ক্রিকেটে অভিজ্ঞ। ধোনি আগের মতো মারকুটে ব্যাটিং না করতে পারলেও আইপিএলে একেবারে খারাপ ব্যাটিং করছেন না। তাছাড়া কিপিংয়ে এখনও তিনি অত্যন্ত ক্ষিপ্র। কিপার হিসেবে এখনও বিশ্বের সেরাদের মধ্যেই নাম আসবে তাঁর। সেকারণেই ধোনির প্রতি আকর্ষণ বেশি বিবিএল ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলির। তবে যুবরাজ এবং রায়নাকেও নিতে চাইছে একাধিক দল। আসলে সব দলই চাইছে এই ভারতীয় ক্রিকেটারদের ব্র্যান্ড ভ্যালুকে কাজে লাগাতে।
যদিও বিগ ব্যাশে খেলবেন কিনা, তা নিয়ে ধোনির তরফে কোনও ইঙ্গিত মেলেনি। এখনও পর্যন্ত যা জানা গিয়েছে, তাতে আগামী বছর আইপিএল তিনি খেলবেন। তাছাড়া বিগ ব্যাশে খেলার ক্ষেত্রে আরও একটা বাধা এই তারকাদের আছে। সেটা হল বিসিসিআই। ভারতীয় বোর্ডের সঙ্গে কোনওরকম চুক্তি থাকলেই ক্রিকেটাররা অন্য কোনও লিগে খেলতে পারবেন না। অবসর নিলেও ধোনি এখনও আইপিএলে খেলছেন। সুতরাং বোর্ডের নিয়ম অনুযায়ী তিনি বিগ ব্যাশে খেলতে পারেন না। একই সমস্যা রায়নার। তিনি যদি আগামী আইপিএলে ফিরতে চান, বা ঘরোয়া ক্রিকেট খেলতে চান, তাহলে তাঁর পক্ষেও বিবিএলে খেলার অনুমতি জোগাড় করা মুশকিল। যুবরাজের অবশ্য সে সমস্যা নেই। বিসিসিআইয়ের সঙ্গে কোনও চুক্তি না থাকার দরুণ, তিনি সব লিগেই খেলতে পারবেন।
 

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top