আজকালের প্রতিবেদন- দুরন্ত গতিতে এগিয়ে চলা অশ্বমেধের ঘোড়া হঠাৎই থমকে গেছে। চার–চারটি জয়ের পর টানা তিন ম্যাচে হার। খারাপ সময় কি শুরু হয়ে গেল কলকাতা নাইট রাইডার্সের?‌ টোয়েন্টি ২০ ক্রিকেটে কখন কোন দল ঘুরে দাঁড়ায়, বলা বেশ কঠিন। রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বাঙ্গালোর টানা ৬ ম্যাচ হেরে সাত নম্বর ম্যাচে ঘুরে দাঁড়িয়েছে। তেমনি নাইট রাইডার্সও যে পরের ম্যাচে ঘুরে দাঁড়াবে না, কে বলতে পারে!‌ তবে নাইটদের পরের ম্যাচ যে খুব একটা সহজ হবে না, সে কথা বলা যায়। শুক্রবার ইডেনে নাইটদের প্রতিপক্ষ বিরাট কোহলির দল। ঘরের মাঠে চেন্নাই সুপার কিংসের কাছে হেরেও কোনও হেলদোল নেই নাইট শিবিরে। রবিবার রাতে হোটেলে রাতভর উদ্দাম পার্টি। পার্টিতে নাইট শিবিরের সব ক্রিকেটারই হাজির ছিলেন। ক্রিকেটারদের স্ত্রী–রাও হাজির ছিলেন ছিলেন। নাইট শিবির থেকে বলা হচ্ছে, টানা ক্রিকেট থেকে মুক্তির জন্য এই নৈশ পার্টি, যা আগে থেকেই ঠিক করা ছিল। 
উদ্দাম পার্টির মাঝেই আগামী দিনে ঘুরে দাঁড়ানোর প্রতিজ্ঞা নাইট শিবিরে। তবে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বাঙ্গালোরের বিরুদ্ধে মাঠে নামার আগে কিছুটা হলেও চিন্তিত নাইট শিবির। একদিকে যেমন আন্দ্রে রাসেলের চোট, তেমনি আবার ভাল শুরু করেও শেষ দিকে ম্যাচ ধরে না রাখতে পারার ঘটনা। পরপর তিনটি পরাজয়ে নাইটদের দুর্বলতা ফুটে উঠছে। কখনও বোলাররা ডুবিয়েছেন, কখনও আবার ব্যাটসম্যানরা। বোলিংয়ে যার ওপর বেশি ভরসা, সেই কুলদীপ যাদব ততটা ধারাবাহিকতা দেখাতে পারছেন না। আর ব্যাটিং পুরোপুরি আন্দ্রে রাসেল–নির্ভর হয়ে দাঁড়িয়েছে। রাসেল যেদিন জ্বলে উঠবেন, সেদিনই নাইটরা জিতবে, ব্যাপারটা অনেকটা এরকম হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাছাড়া ম্যাচের শেষ দিকে ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারছে না। নাইটদের হেড কোচ জাক কালিসের মুখে সেই আশঙ্কার কথা শোনা গেছে। চেন্নাই সুপার কিংসের কাছে পরাজয়ের পর সাংবাদিক সম্মেলনে সে কথা তিনি প্রকাশও করে ফেলেছেন। কালিস বলেন, ‘‌যে কটা ম্যাচ হেরেছি, প্রত্যেকটায় ১৬ ওভার পর্যন্ত আমাদের নিয়ন্ত্রণ ছিল। তারপর হাত থেকে ম্যাচ বেরিয়ে গেছে। এ ব্যাপারে আমাদের সতর্ক হতে হবে।’‌ দুর্দান্ত শুরু করেও ৮ ম্যাচে ৮ পয়েন্ট পেয়ে আইপিএলের মাঝপথে নাইট রাইডার্সকে বেশ নড়বড়ে দেখাচ্ছে। এর মধ্যে আবার চিন্তা বাড়িয়েছে রাসেলের চোট। রবিবার ইডেনে চেন্নাই সুপার কিংসের বিরুদ্ধে রান পাননি রাসেল। বোলিং করার সময় খোঁড়াচ্ছিলেন। শুক্রবার রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বাঙ্গালোরের বিরুদ্ধে ম্যাচের আগে কতটা সুস্থ হয়ে উঠবেন, তা নিয়ে ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে। যদিও হাতে এখনও ৩ দিন সময় রয়েছে। কালিসের মুখে আশার কথা। চেন্নাইয়ের বিরুদ্ধে ম্যাচের পর তিনি বলেন, ‘‌রাসেলের চোট তেমন গুরুতর নয়। রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বাঙ্গালোর ম্যাচের আগে হাতে ৩ দিন সময় আছে। আশা করছি, তার আগেই রাসেল পুরো ফিট হয়ে যাবে।’‌ চেন্নাইয়ের বিরুদ্ধে চিপকে হাতে চোট পেয়েছিলেন রাসেল। সেই চোটই ভোগাচ্ছে এই ক্যারিবিয়ান অলরাউন্ডারকে। পরপর তিন ম্যাচে হারলেও নাইট শিবিরে সেভাবে ময়নাতদন্ত হয়নি। ক্রিকেটারদের তরতাজা করে তুলতে দু’‌দিন বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে। তবে ক্রিকেটাররা হোটেলের জিমে, সুইমিং পুলে সময় কাটাচ্ছেন। 
টানা তিন ম্যাচ হারের মাঝেও নাইট শিবিরে সুখবর। বিশ্বকাপ দলে নাইট শিবির থেকে জায়গা পেয়েছেন দুই ক্রিকেটার, অধিনায়ক দীনেশ কার্তিক ও কুলদীপ যাদব। কুলদীপ যাদবের জায়গা পাওয়া নিয়ে কোনও অনিশ্চয়তা ছিল না। কিন্তু দীনেশ কার্তিকের জায়গা পাওয়া চমকই বলতে হবে। ঋষভ পন্থের সঙ্গে তাঁর লড়াই ছিল। শেষ পর্যন্ত ঋষভকে পেছনে ফেলে বিশ্বকাপের টিকিট জোগাড় করে ফেলেছেন কার্তিক। অধিনায়ক বিশ্বকাপ দলে সুযোগ পাওয়ায় নাইট শিবিরে খুশির হাওয়া। কার্তিকের বিশ্বকাপ দলে সুযোগ পাওয়া নিয়ে কোচ জাক কালিস বলেছেন, ‘‌দীনেশ কার্তিক অত্যন্ত অভিজ্ঞ ক্রিকেটার। ইংল্যান্ডে আগেও খেলেছে। ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট কী ভাবছে জানি না, তবে আমার মতে বিশ্বকাপে দলের ব্যাটিংয়ে চার নম্বর জায়গায় দীনেশ কার্তিক আদর্শ। চার নম্বর জায়গায় বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যানকেই খেলানো উচিত। ডট বল করে কার্তিককে আটকে রাখা যায় না।’‌ তিনি আরও বলেন, ‘‌কার্তিকের ক্রিকেট–মস্তিষ্ক দারুণ। ভারতীয় মিডল অর্ডারকে ভারসাম্য এনে দেওয়ার ক্ষমতা আছে। নানারকম শট খেলার ক্ষমতা আছে। তরুণদের ভালভাবে অনুপ্রাণিত করার দক্ষতাও রয়েছে।’

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top