India-New Zealand: রোহিত, শুভমনের দাপটে ১২ বছর পর একদিনের সিরিজে হোয়াইটওয়াশ নিউজিল্যান্ড 

আজকাল ওয়েবডেস্ক: শ্রীলঙ্কার পর নিউজিল্যান্ড। হোয়াইটওয়াশ কিউয়িরা।‌ মঙ্গলবার ইন্দোরে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে তৃতীয় একদিনের ম্যাচও জিতল ভারত। ১২ বছর পর একদিনের আন্তর্জাতিকে নিউজিল্যান্ডকে হোয়াইটওয়াশ, ঘরের মাঠে ৩-০ তে সিরিজ জিতল টিম ইন্ডিয়া। প্রথমে ব্যাট করে ৯ উইকেট হারিয়ে ৩৮৫ রান তোলে ভারত। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ৪১.২ ওভারে ২৯৫ রানে শেষ হয়ে যায় নিউজিল্যান্ডের ইনিংস। ৯০ রানে জেতে ভারত। ডেভন কনওয়ের শতরান বাঁচাতে পারল না কিউইদের। ১০০ বলে ১২৮ রান করে আউট হন নিউজিল্যান্ডের ওপেনার। শার্দূল‌ ঠাকুর এবং কুলদীপ যাদব তিনটে করে উইকেট নেন। তবে ভারতের জয়ের আসল কান্ডারী রোহিত শর্মা এবং শুভমন গিল। দু'জনেই শতরান করেন। ৮৫ বলে ১০১ রান করে সেঞ্চুরির সংখ্যায় প্রথমজন ছুঁয়ে ফেলেন রিকি পন্টিংকে। দ্বিতীয়জন বিরাট কোহলির রেকর্ড ভেঙে ছুঁয়ে ফেলেন বাবর আজমকে। দুই ওপেনারের ব্যাটে ভর করে বড় জয় টিম ইন্ডিয়ার। তবে শেষে গুরুত্বপূর্ণ ২৫ রান যোগ করায় এবং তিন উইকেট নেওয়ার জন্য ম্যাচের সেরা শার্দূল ঠাকুর। সিরিজ সেরা শুভমন গিল। 

টসে জিতে এদিন ভারতকে ব্যাট করতে পাঠান নিউজিল্যান্ডের অস্থায়ী অধিনায়ক টম লাথাম। ইন্দোরের ছোট মাঠ এবং ফাস্ট আউটফিল্ডের সুযোগ নেয় ভারত। ইনিংসে মোট ১৯টি ছয় মারে ভারতীয় ব্যাটাররা।‌ যা একদিনের ক্রিকেট রেকর্ড। দুই ওপেনারই শতরান করেন। ঝোড়ো ব্যাটিং করেন রোহিত এবং শুভমন। একইসঙ্গে শতরান সম্পূর্ণ করেন। ৮৩ বলে একশো করেন রোহিত। তাতে ছিল ৬টি ছয় এবং ৯টি চার। খরা কাটিয়ে তিন বছর পর শতরান পান। একদিনের ক্রিকেটে এটা ছিল রোহিতের ৩০তম শতরান।

উইকেটের অন্য প্রান্তে অপ্রতিরোধ্য শুভমন গিল। ৭২ বলে একশো পূর্ণ করেন। শেষ চার ম্যাচে তিন নম্বর শতরান। তারমধ্যে একটি দ্বিশতরানও রয়েছে। ওপেনিংয়ে ২১২ রান যোগ করে এই জুটি। কিন্তু তাঁরা ফিরতেই সমস্যায় পড়ে ভারত। রান পাননি বিরাট কোহলি (৩৬), ঈশান কিষাণ (১৭), সূর্যকুমার যাদব (১৪)। পরের দিকে ভারতের ইনিংস টেনে নিয়ে যান হার্দিক পাণ্ডিয়া। ৩৮ বলে ৫৪ রান যোগ করেন। স্কোরবোর্ডে গুরুত্বপূর্ণ ২৫ রান যোগ করেন শার্দূল ঠাকুর। ৯ উইকেটে ৩৮৫ রানে শেষ হয় ভারতের ইনিংস। তিনটে করে উইকেট নেন জেকব ডাফি এবং ব্লেয়ার টিকনার। 

রান তাড়া করতে নেমে দ্বিতীয় বলেই ফিন অ্যালেনের (০) উইকেট তুলে নেন হার্দিক পাণ্ডিয়া।‌ শূন্য রানে প্রথম উইকেট হারায় নিউজিল্যান্ড। দ্বিতীয় উইকেটে ১০৬ রান যোগ করেন ডেভন কনওয়ে এবং হেনরি নিকোলস।‌ শেষমেষ পার্টনারশিপ ভাঙেন কুলদীপ যাদব। ৪২ রানে ফিরে যান হেনরি। এরপর কিছুটা চেষ্টা করেন ড্যারেল মিচেল (২৪)। কিন্তু মাঝে ক্রমাগত উইকেট হারানোয় পার্টনারশিপ গড়ে ওঠেনি। উইকেটের একপ্রান্তে একা লড়াই চালিয়ে যান কনওয়ে। ৮টি ছয় এবং ১২টি চারের সাহায্যে ১০০ বলে ১৩৮ রান করেন কিউয়ি ওপেনার। আবার ব্যর্থ লাথাম। প্রথম বলেই ফিরে যান নিউজিল্যান্ডের অধিনায়ক। কনওয়ে ফিরে যাওয়ার পর জয়ের আশা ছিল না কিউয়িদের। তাসত্ত্বেও শেষদিকে কিছুটা লড়াই করার চেষ্টা করেন মাইকেল ব্রেসওয়েল (২৬) এবং মিচেল স্যান্টনার (৩৪)। এই জুটি প্রথম একদিনের ম্যাচে নিউজিল্যান্ডকে প্রায় জয়ের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিয়েছিল। কিন্তু এদিন তাঁদের রান যথেষ্ট ছিল না। ৪১.২ ওভারে ২৯৫ রানে অলআউট হয়ে যায় কিউয়িরা।‌ তিনটে করে উইকেট নেন শার্দূল ঠাকুর এবং কুলদীপ যাদব। জোড়া শিকার যুজবেন্দ্র চাহালের। 

আকর্ষণীয় খবর