দেবাশিস দত্ত, নটিংহ্যাম: কাশ্মীরের উলিদ যদি রুমহিটার না জ্বালাতেন, তাহলে হয়তো হাত–‌পা অবশ হয়ে যেত। নাগাড়ে বৃষ্টি, সঙ্গে ঠান্ডা হাওয়া, ছাতা ভেঙে যাচ্ছিল তাণ্ডবে। তখন ভবিষ্যতের জন্য ছাতাটা বঁাচিয়ে রাখার সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছিলাম, তাতে যদি আরও ভিজতে হয় ভিজব। এটা করতে গিয়ে যখন কাকভেজা হয়ে ঠকঠক করে কঁাপছি, তখন বছর তিরিশের উলিদ এসে উদ্ধার করলেন ট্যাক্সির ভেতরে ঢুকিয়ে নিয়ে। সোমবারও প্রবল বৃষ্টিতে নটিংহ্যাম ভেসে গিয়েছিল। মঙ্গলবারও যাচ্ছে। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত নাকি এই দুর্যোগ চলবে। সেদিনই তো নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে ম্যাচ। তাহলে কি এবারের বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজ–‌দক্ষিণ আফ্রিকা ম্যাচের মতো ভেস্তে যাবে?‌ আপাতত রবিনহুডের শহর এই প্রশ্নকে সামনে রেখে প্রহর গুনতে শুরু করেছে। আইসিসি–‌কে দোষারোপ করে লাভ নেই। এটাই তো বিলেতের আবহাওয়ার রহস্য। ক্রীড়াসূচি তৈরি করার সময় কে জানত, এবার সামারেই ‘‌বর্ষাকাল’‌ হুট করে এসে হাজির হয়ে যাবে?‌
নিউজিল্যান্ড শিবিরের পক্ষে লাকি ফার্গুসন অবশ্য এই বৃষ্টির মধ্যেও সাংবাদিক সম্মেলন করতে এসে বলে গেলেন, ‘আমরা খেলতে চাই। পয়েন্ট ভাগ হোক, সেটা চাই না। খেলেই ২ পয়েন্ট সংগ্রহ করে নেওয়া আমাদের লক্ষ্য।’‌ (অবিরাম বৃষ্টিতে ভারতীয় দল প্র‌্যাকটিস বাতিল করে দিল। গোটা শিবির জেরবার হয়ে রয়েছে শিখর ধাওয়ানের চোট নিয়ে। টানা ৩টি ম্যাচ জেতা নিউজিল্যান্ড অবশ্য বৃষ্টি মাথায় নিয়েই মাঠে এসে ইনডোর স্টেডিয়ামে প্র‌্যাকটিস করে গেল।)‌
মাঠের অদূরে ট্রেন্ট নদী। সেজন্যই তো মাঠের নাম ট্রেন্ট ব্রিজ। মাঠে আসার সময় দেখি ওই সেতুর ওপর শুধু আইসিসি বিশ্বকাপের বিজ্ঞাপন। নদীর জল দেখতে পাওয়া যায়নি। তবে সেতু যখন শেষ হয়ে আসছে, তখন বঁাদিকে তাকিয়ে দেখি, নদীর ওপর একটা স্টিমারের মাথায় পতপত করে উড়ছে এবারের বিশ্বকাপের লোগো। সোম এবং মঙ্গলবার— এই দু’‌দিন শহরে ঘুরতে গিয়ে দেখলাম, গোটা শহর আইসিসি–‌র বিজ্ঞাপনে ছয়লাপ। এতটা বিজ্ঞাপন তো ওভাল বা লর্ডসের ধারেও দেখিনি। ভারত বনাম নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেট ম্যাচকে ঘিরে প্রবাসী ভারতীয়রা এ শহরের সব হোটেল দখল করে নিয়েছে। সোল্ডআউট বোর্ড ঝুলছে সব হোটেলে। অস্ট্রেলিয়াকে হারানোর অনেক আগে থেকে যে ট্রেন্ট ব্রিজ হাউসফুল হয়ে গেছে, সেটা আইসিসি অনেক আগে জানিয়ে দিয়েছিল। এখন এই অদ্ভুত ক্রিকেটীয় আবহ নষ্ট হয়ে যেতে বসেছে বৃষ্টির কারণে। এই কারণে আগ্রহী পাঠকদের মনে থাকতে পারে, বিশ্বকাপ শুরুর আগে ৯৩ বছর বয়সি রানি এলিজাবেথের সঙ্গে যখন ১০ অধিনায়ক বাকিংহাম প্যালেসে দেখা করতে গিয়েছিলেন, তখন বৃদ্ধা বলেছিলেন, ‘‌দেখো যেন বৃষ্টিতে পণ্ড না হয়ে যায় বিশ্বকাপ।’‌ এখনও হয়নি। তবে, যে গতিতে বৃষ্টি হচ্ছে, তাতে কিন্তু আরও কয়েকটা ম্যাচ বাতিল হয়ে যেতেই পারে আবহাওয়ার কারণে।
৩টি ম্যাচ খেলে জয় পেয়েছে কিউই শিবির প্রত্যেকটিতেই। এখনও পর্যন্ত ইংল্যান্ডের মতো বিশ্বকাপ পায়নি একবারও স্যর রিচার্ড হেডলির দেশ নিউজিল্যান্ড। এবার এখানে এই বাজে ঐতিহ্য ভেঙে ফেলার জন্য কেন উইলিয়ামসনরা কম চেষ্টা করছেন না। টানা ৩টি ম্যাচ জেতার কারণে নিউজিল্যান্ড গুটি গুটি পায়ে সেমিফাইনালে ওঠার দিকে হালকা করে নিজেদের দাবি জানিয়ে রাখছে। এজন্য বৃষ্টি বা ৪৫ ডিগ্রি গরম— কোনও অবস্থাতেই খেলা ছেড়ে পালিয়ে যেতে চাইছে না গত বিশ্বকাপের ফাইনালে ওঠা দল। লাকি ফার্গুসন জানিয়ে গেলেন, ওয়ার্মআপ গেমে ভারতকে হারানোর ব্যাপারটায় অনেক বেশি আত্মবিশ্বাস নিয়ে তঁারা বৃহস্পতিবার ভারতের বিরুদ্ধে মাঠে নামার সুযোগ পাবেন, ‘আমরা জানি, ওয়ার্মআপ গেমের রেজাল্ট বৃহস্পতিবার হিসেবের মধ্যে থাকবে না। নতুন করে একটা তাজা ম্যাচ খেলতে নামতে হবে দু’‌পক্ষকেই। এই মুহূর্তে ব্ল্যাক ক্যাপসরা চাইছে সব ম্যাচ থেকে ২ পয়েন্ট করে ঘরে তুলতে। আমাদের জোরে বোলিং বিভাগ দুর্ধর্ষ ফর্মে রয়েছে। ট্রেন্ট বোল্ট একাই তো লন্ডভন্ড করে দিচ্ছে। এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজ আমাদের দেখিয়ে দিয়েছে, ট্রেন্ট ব্রিজের এই মাঠে বাড়তি বাউন্স আছে। ছোট মাঠ। এই বিষয়গুলো আমাদের অনুকূলেই থাকবে। আমরা শুধু ধৈর্য ধরে খেলার চেষ্টা করব। জানি ভারত খুব ভাল দল। দক্ষিণ আফ্রিকা, অস্ট্রেলিয়াকে ওরা হারিয়ে দিয়েছে। তবু আমরা চেষ্টা করব, যাতে নিজেদের শক্তি অনুযায়ী খেলতে পারি। প্রার্থনা করুন, যেন বৃষ্টি কমে যায়। খেলাটা যাতে শুরু হয়।’

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top