আজকালের প্রতিবেদন: দুই গোলকিপার পাশাপাশি দঁাড়িয়ে। গোলের সামনে নয়। দু’‌জনেই হাফ লাইনে। ইস্টবেঙ্গল ফুটবলাররা হাফ লাইনের কাছে বল পেলেই দুই গোলকিপারকে পাস বাড়াচ্ছেন। গোলকিপার ধরে তা আবার দিয়ে দিচ্ছেন ফুটবলারকে। তারপর নিজেদের মধ্যে ওয়ানটাচ খেলে গোলের সামনে পৌঁছে যাওয়া। দু’‌দিকে দুটো গোলপোস্ট নয়। ছোট গোলপোস্ট তিনটে করে দু’‌দিকে মিলিয়ে মোট ছ’‌টা। জবি জস্টিন, এনরিকে এসকুইদাদের নিশানা ঠিক করতে রবিবারের সরস্বতী পুজোর সকালে এমনই অভিনব মহড়া চলল আলেসান্দ্রো মেনেন্ডেজের প্র্যাকটিসে। লাল–হলুদ ফুটবলাররা তা দারুণ উপভোগ করছিলেন। প্র্যাকটিস শেষে বাড়ি ফেরার পথে টিম ম্যানেজমেন্টের এক সদস্য বলছিলেন, এটা নিছকই মজার অনুশীলন। আসলে কিন্তু তা নয়। ফুটবলারদের নিশানা ঠিক করার লক্ষ্য ছিল আলেসান্দ্রোর। ইস্টবেঙ্গলের স্প্যানিশ কোচের অনুশীলনে মাঝেমধ্যেই এরকম অভিনবত্ব দেখা যায়। ড্রেসিংরুমে কার্লোস নাদারের নানান মজার জিনিস চলে। মাঠের মধ্যে আলেসান্দ্রোর অনুশীলনেও বৈচিত্র্য। কোয়েস কর্তারা কোচ বাছাইয়ে যে কতটা মগজ লাগিয়েছিলেন, যতদিন যাচ্ছে দিনের আলোর মতো পরিষ্কার হয়ে যাচ্ছে।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top