‌অগ্নি পান্ডে: জয়, বিকাশ, পিকলু, সুরজিৎ, রাজীব, দিলীপরা মূলত নাইট–সমর্থক। কিন্তু রবিবার তাঁরা দলবেঁধে মাঠে এসেছিলেন শুধু একজনের জন্যই। অনন্যা–সুভাষ তো বাদশার ভক্ত। সেজন্য স্বাভাবিকভাবেই নাইট–সমর্থক। কিন্তু রবিবার এই দম্পতিও কেমন যেন হয়ে গেলেন ইডেনে ঢুকে। এ তো অবিশ্বাস্য দৃশ্য। গোটা ইডেন জুড়ে শুধুই হলুদ–ঢেউ। শুধু তাঁর জন্যই।
আট থেকে আশি— সবাই চিৎকার করছেন একজনেরই নাম। ধোনি–ধোনি–ধোনি! আবালবৃদ্ধবনিতা, তাঁর সঙ্গেই জনতা। শুধু মাত্র তাঁকে দেখতেই তো ভ্যাপসা গরমের মধ্যেও ইডেনমুখো হওয়া। তিনিই তো বস। হলুদরঙা ৭ নম্বর জার্সির নামে যে মুহুর্মুহু জয়ধ্বনি উঠল তা অবাক করে দিল নাইট বাদশা ‘কিং খান’কেও। সৌরভ গাঙ্গুলি নামাঙ্কিত ইডেনের ব্যালকনিতে কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকার পর বাদশা সেই যে বক্সে ঢুকে গেলেন তারপর আর ইডেন–জনতা গোটা ম্যাচে তাঁকে বাইরে বেরতে দেখল না। কারণ, মাঠের দখল নিয়ে নিয়েছেন আর কেউ নন, স্বয়ং মহেন্দ্র সিং ধোনি! সঙ্গী ইমরান তাহির। আন্দ্রে রাসেলকে আউট করে তাহিরের আস্ফালন তো সরাসরি শাহরুখ খানের বক্সের দিকেই! ইডেন উল্লাসে মেতে উঠল।
আর তিনি? সেই ‘ঠান্ডা ঠান্ডা, কুল কুল’। উইকেটের পেছনে দাঁড়িয়ে বুদ্ধি করে বারবার বোলার বদলে গেলেন। ফিল্ডিং সাজিয়ে গেলেন। না, নেই কোনও আবেগের বিন্দুবিসর্গ। তিনি এমনই। জনতা জানে। চেনে। বহুদিনের সম্পর্ক তাঁর সঙ্গে ক্রিকেটপ্রেমীদের। নইলে রবিবারের ইডেন কেন মনে করিয়ে দেবে সেই সময়ের কথা?
কোন সময়? কেন মনে নেই? সেই গ্রেগ চ্যাপেলের জমানা। সৌরভ গাঙ্গুলি ভারতীয় দল থেকে বাদ। রাহুল দ্রাবিড়ের নেতৃত্বে ভারতীয় দল ইডেনে গ্রেম স্মিথের দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে একটি একদিনের আর্ন্তজাতিক ম্যাচ খেলেছিল। কলকাতা থেকে মুম্বইয়ে ফিরে সে–সময়েই ভারতীয় দলের এক সদস্য বলেছিলেন, ‘ওঃ!‌ বাঁচা গেল।‌ কলকাতা তো নয়, মনে হচ্ছিল জোহানেসবার্গে খেলতে গিয়েছিলাম।’ কারণ, সেই ম্যাচে গোটা ইডেন সমর্থন করেছিল দক্ষিণ আফ্রিকাকেই! সৌরভকে অন্যায়ভাবে বাদ দেওয়ার রাগে। রবিবারও তেমনই মনে হতে বাধ্য নাইট–কর্তাদের।
কারণ, ঠিক সন্ধে ৭টা বাজতে ৫ মিনিট আগে তিনি ক্লাব হাউসের ড্রেসিংরুম থেকে যখন ব্যাট হাতে বেরোলেন, তখন ৬৫ হাজারি ইডেন উঠে দাঁড়িয়ে! হ্যঁা, স্ট্যান্ডিং ওভেশন! জ্বলে উঠল ৬৫ হাজার মোবাইলের ফ্ল্যাশ! এই দৃশ্য দেখতেই তো ইডেনে আসা। আর সেই নাম না–জানা ধোনিপ্রেমী? কুলদীপকে মারা ধোনির ছয় সৌরভ গাঙ্গুলি নামাঙ্কিত স্ট্যান্ডের লোয়ার টিয়ারে ক্যাচ ধরে বলটাই আর মাঠে ফেরত দিতে চাইছিলেন না! এমন দৃশ্য ইডেন কবে দেখেছে? মাহি–ম্যানিয়ায় সত্যি আক্রান্ত ইডেন। এত বিপুল সমর্থন চেন্নাই চিপকেও পায় না। রবিবার সৌরভ গাঙ্গুলি শুক্র–রাতে ‘কিং খান’–এর ইডেনকে ভেঙে দিয়েছিলেন। আর রবি–রাতে মাহি আস্ত ইডেনটাই যে পকেটে পুরে নিলেন! বেশি রান করতে না পেরেও! শেষ পর্যন্ত ম্যাচ জিতে তো বটেই। ইডেন তো তাঁর জয় দেখতেই এসে ছিল। বাদশা জানতেন। তাই ইডেনে উপস্থিত থাকলে শাহরুখ খান ম্যাচ শেষে ছোট ছেলে আব্রাম নিয়ে গোটা ইডেন প্রদক্ষিণ করেন। রবি–রাতে তিনি কোথায়? মাহি তো তাঁকে অনেক আগেই বক্সবন্দি করে দিয়েছিলেন! উল্টে একরত্তি জিভাকে নিয়ে ধোনি ইডেন শাসন করলেন।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top