সংবাদ সংস্থা, সেঞ্চুরিয়ন: আরও একটা ম্যাচ। আরও একবার স্পিনারদের দাপট। ২–০ এগিয়ে গিয়ে, সিরিজ অনেকটাই কব্জা করে নিয়েছে ভারত। সব থেকে বড় ব্যাপার, কুলদীপ যাদব–যুজবেন্দ্র চাহালরা থামছেনই না। প্রথম ম্যাচে দু’‌জনে ৫ উইকেট নেওয়ার পর, এদিন জুটিতে তুলেছেন আট–আটটা উইকেট। যার মধ্যে একাই ৫টা নিয়েছেন যুজবেন্দ্র। ম্যাচের শেষে দুই স্পিনারের ভূয়সী প্রশংসা করে গেলেন ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলি। বললেন, ‘‌দুই স্পিনারই অসাধারণ বোলিং করেছে। জানতাম, ডারবানের থেকে এই পিচটা বেশ শক্ত। স্পিনাররা এরকম পিচের সঙ্গে পরিচিত। উইকেটে সেভাবে ঘাসও ছিল না। তাছাড়া আমাদের যে দুই স্পিনার রয়েছে, তারা যে কোনও পিচে বল ঘোরাতে পারে। ওরা দক্ষিণ আফ্রিকাকে কোনও সুযোগই দিল না।’‌ এদিনও কোহলিকে দেখা যায় টসে জিতে রান তাড়া করার সিদ্ধান্ত নিতে। সিদ্ধান্তের স্বপক্ষে কোহলি বলে গেলেন, ‘‌যদি জানি যে কত রান তুলতে হবে, তাহলে সেইমতো খেলাটা চালনা করা যায়। টপ অর্ডারের রোহিত শর্মা আর শিখর ধাওয়ানের সেই ক্ষমতা রয়েছে। আগের দিনও ওরা শুরুটা ভাল করেছিল।’‌ ২–০ এগিয়ে যাওয়ার প্রসঙ্গে কোহলির মন্তব্য, ‘‌দুর্দান্ত জায়গায় রয়েছি আমরা। ওদের মিডল অর্ডার যে কিছুটা দুর্বল, সেটা আমরা জানতাম। যেভাবে আমাদের স্পিনাররা বোলিং করেছে, আশা করি সিরিজের বাকিটাও এই ছন্দ ওরা ধরে রাখতে পারবে।’‌
ম্যাচের সেরা চাহাল বলে গেলেন, ‘‌এই ধরনের পরিবেশে বোলিং করা পছন্দ করি। সাধারণত ভারতে এই ধরনের পিচে বোলিং করে আমরা অভ্যস্ত।’‌ বিদেশের মাটিতে দক্ষতার থেকে মানসিকতাকেই বেশি এগিয়ে রাখতে চাইলেন তিনি। পাশাপাশি, সতীর্থ কুলদীপের প্রশংসা করে বলেছেন, ‘‌প্রথম উইকেট পাওয়ার পর উল্টো দিক থেকে কুলদীপ এসে ২টো উইকেট নিয়ে নিল। এতেই বিপক্ষ চাপে পড়ে গেল।’‌
দক্ষিণ আফ্রিকার অস্থায়ী অধিনায়ক এইডেন মার্করাম এসে স্বীকার করে গেলেন, পরিকল্পনার অভাব নয়, তা কাজে লাগাতে না পারাতেই হারতে হয়েছে। বললেন, ‘‌প্রথম ছ–‌সাতজন ব্যাটসম্যানকে জিজ্ঞাসা করে দেখুন, প্রত্যেকে নিজস্ব পরিকল্পনা নিয়েই নেমেছিল। কিন্তু কেউই সেগুলো কাজে লাগাতে পারেনি। তবে ভারতের দুই স্পিনারকে ধন্যবাদ দিতেই হবে। আশা করি, পরের ম্যাচগুলোতে ফিরে আসতে পারব।’‌ মাত্র ১১৮ রানে অলআউট হয়ে গেলেও, পিচকে দুষতে নারাজ মার্করাম। বলেছেন, ‘‌দোষটা আমাদের খেলতে না পারার।’‌
এদিকে, চোটের কারণে সিরিজের প্রথম ম্যাচ থেকে ছিটকে গেলেও এবি ডি’‌ভিলিয়ার্স দেখা গেছে গল্‌ফ খেলতে। যা নিয়ে খুশি নয় দক্ষিণ আফ্রিকা টিম ম্যানেজমেন্ট। মেডিক্যাল কমিটি জানিয়েছে, ঝুঁকিপূর্ণ কোনও কাজই করা উচিত নয়। তবে আশার কথা এটাই, গল্‌ফ খেলতে গিয়ে ফিট দেখিয়েছে ডি’‌ভিলিয়ার্সকে। চতুর্থ ওয়ানডে–তে তাঁর ফেরার ব্যাপারে আশাবাদী দক্ষিণ আফ্রিকা শিবির।‌

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top