আজকালের প্রতিবেদন: এবার চৌষট্টি খোপে ‘দাদাগিরি’।
বিশ্বচ্যাম্পিয়ন গ্র্যান্ডমাস্টার ম্যাগনাস কার্লসেনের উল্টোদিকে সৌরভ গাঙ্গুলি। মহারাজ তখন দাবাড়ুর ভূমিকায়। পাশে তাঁর মেন্টরের ভূমিকায় গ্র্যান্ডমাস্টার বিশ্বনাথন আনন্দ। সঞ্চালক সৌরভকে চাল দেওয়ার অনুরোধ জানান। ‘মেন্টর’ আনন্দের সাহায্যে বোড়ে এগিয়ে দিলেন। মাইক্রোফোন হাতে নিয়ে সৌরভ বললেন, ‘এই চালটা দেখে ছোটবেলায় বাবার কথা মনে পড়ে গেল। বাবা প্রথম দাবার বোর্ড কিনে দিয়ে এই বোড়ের চালটা দিতেন।’ তা শুনে আনন্দের মুখে হাসি।
বৃহস্পতিবার পড়ন্ত বিকেলে টাটা স্টিল গ্র্যান্ড চেস ট্যুরের ড্র অনুষ্ঠান সৌরভময়। ইডেনের চরম ব্যস্ততার মাঝে আধ ঘণ্টার জন্য এসেছিলেন সৌরভ। তঁার হাত দিয়ে তিনটে ড্রয়ের চিরকুট তোলান আয়োজকরা। তাতে তিনজন তারকা আনন্দ, কার্লসেন এবং ওয়েসলি সো-‌র নাম ওঠে সৌরভের হাত দিয়ে। সৌরভ বলেন, ‘আমার হাত দিয়ে তিনজন স্টার প্লেয়ারের নাম উঠল।’
গ্র্যান্ড চেস ট্যুরের র‌্যাপিড ও ব্লিৎজের ড্র হল এদিন। তাতে আনন্দ–কার্লসেন প্রথম রাউন্ডে মুখোমুখি পড়েননি। র‌্যাপিড ড্র–তে পি হরিকৃষ্ণ খেলবেন বিদিত গুজরাটির সঙ্গে। ডিং লিরেন খেলবেন আনন্দের বিরুদ্ধে। ওয়েসলি সো বনাম কার্লসেন। ইয়ান খেলবেন অনীশ গিরির সঙ্গে। লেভন অ্যারোনিয়ান বনাম হিকারু নাকামুরা।
ব্লিৎজের ড্র–তে অ্যারোনিয়ানের মুখোমুখি হরিকৃষ্ণ। আনন্দ খেলবেন ইয়ানের বিরুদ্ধে। ওয়েসলি বনাম লিরেন। গুজরাটি খেলবেন কার্লসেনের সঙ্গে। অনীশ ব‍নাম নাকামুরা।
কলকাতাকে বেশ উপভোগ করছেন আনন্দ। বললেন, ‘কলকাতা আমার কাছে দ্বিতীয় হোম টাউন। এখানে খেলা উপভোগ করি।’ এই প্রতিযোগিতায় সকলেরই নজর থাকবে কার্লসেন বনাম আনন্দ লড়াইয়ে। যা নিয়ে ভিশি বলছেন, ‘শুধু কার্লসেন নয়, সব ক’টা ম্যাচই কঠিন হবে। কার্লসেন অবশ্যই দারুণ প্লেয়ার। ওর সঙ্গে লড়াইটা উপভোগ করি।’ পাশাপাশি, কার্লসেনকে এই প্রতিযোগিতার ফেবারিট হিসেবে মানছেন আনন্দ।
গোলাপি বলের দিন–রাতের টেস্ট নিয়ে আনন্দ বলেন, ‘কলকাতায় গোলাপি বলে টেস্ট হচ্ছে শুনেছি। টেস্টে এই বদলটাকে ইতিবাচক হিসেবেই দেখছি।’ কার্লসেন বলেন, ‘কলকাতায় এসে দারুণ লাগছে। কঠিন লড়াই হবে। প্রস্তুত রয়েছি।’‌

দাবার ছকে তিন কিংবদন্তি। টাটা স্টিল দাবার উদ্বোধনে সৌরভ গাঙ্গুলি, বিশ্বনাথন আনন্দ, ম্যাগনাস কার্লসেন। ছবি: দীপক গুপ্ত

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top