Commonwealth: সোনা জিতলেন বজরং পুনিয়া, সাক্ষী মালিক, একঘন্টায় কুস্তিতে জোড়া পদক

আজকাল ওয়েবডেস্ক: মাত্র একঘন্টার মধ্যে কুস্তি থেকে এল জোড়া সোনা।

প্রথমে পুরুষদের ৬৫ কেজি বিভাগে সোনা জেতেন বজরং পুনিয়া। তার কিছুক্ষণের মধ্যেই মেয়েদের ৬২ কেজি বিভাগে সোনা জিতলেন সাক্ষী মালিক। কুস্তিতে জোড়া সোনায় কমনওয়েলথ গেমসে আটটি সোনা হল ভারতের। বজরং, সাক্ষী দু'জনেই টানা তিনটে কমনওয়েলথে পদক জিতলেন। ২০১৪ গ্লাসগো কমনওয়েলথ গেমসে রুপো পেয়েছিলেন ভারতের মহিলা কুস্তিগির। গোল্ড কোস্টে ব্রোঞ্জ জেতেন। এবার এল সোনা। ফাইনালে প্রথমে কানাডার আনা গদিনেজ গঞ্জালেজের বিরুদ্ধে ০-৪ এ পিছিয়ে পড়েছিলেন। তারপর দারুণ কামব্যাক করেন। পরপর চারটে পয়েন্ট জেতেন। ভিকট্রি বাই ফল-এর বিচারে চ্যাম্পিয়ন হন সাক্ষী। 

২০১৬ রিও অলিম্পিকে ব্রোঞ্জ জিতে প্রথম প্রচারের আলোয় আসেন। কিন্তু তারপর চোট-আঘাতে দীর্ঘদিন প্রতিযোগিতার বাইরে ছিলেন। কিন্তু চলতি বছর আবার প্রত্যাবর্তন করেন। টিউনিশ সিরিজে ব্রোঞ্জ জেতেন। তাই তাঁকে ফিরে একটা আশা ছিল। নিজের আগের দুই কমনওয়েলথের পারফরম্যান্স ছাপিয়ে বার্মিংহ্যাম থেকে সোনা নিয়ে ফিরছেন সাক্ষী। অন্যদিকে কমনওয়েলথ গেমসে টানা দু'বার সোনা জয় বজরং পুনিয়ার। গোল্ড কোস্টের পর বার্মিংহ্যাম। ৬৫ কেজি ফ্রিস্টাইলে কানাডার লাচলান ম্যাকনিলকে ৯-২ পয়েন্টে হারিয়ে সোনা জেতেন ভারতীয় কুস্তিগির। পরপর দু'বার সোনা জয়ের পাশাপাশি কমনওয়েলথে পদকের হ্যাটট্রিক। ২০১৪ সালে ৬১ কেজিতে রুপো জিতেছিলেন। গেমসে অংশ নেওয়ার আগে তাঁর ট্যাকটিক্স নিয়ে প্রশ্ন উঠেছিল। কিন্তু দুর্দান্ত পারফরমেন্সে জবাব দিলেন বজরং। ফাইনালের আগে একটি পয়েন্টও হারাননি। প্রত্যেক প্রতিপক্ষকে ক্লিন সুইপ করে ফাইনালে ওঠেন। হরিয়ানার কুস্তিগিরের থেকে সোনার আশায় ছিল গোটা দেশ। হতাশ করেননি বজরং।

আকর্ষণীয় খবর