আজকালের প্রতিবেদন- বাগানের নির্বাচনী অঙ্কে দু’‌পক্ষেরই তঁাকে দরকার। কিন্তু তিনি কী করবেন? বাগানের পদত্যাগী সহ–সচিব সৃঞ্জয় বসুর ভবানীপুর ক্লাবের কোচ হয়েছেন নতুন মরশুমের জন্য। মোহনবাগানের দুই গোষ্ঠীর দুই প্রাক্তন ফুটবলার শিশির ঘোষ, সত্যজিৎ চ্যাটার্জিকে বিঁধলেন সুব্রত। মঙ্গলবার কোচ–ফুটবলার বৈঠকের পর ক্লাব তঁাবুতে হাজির হয়েছিলেন সুব্রত ভট্টাচার্য। তঁাবুতে ঢুকে সোজা ফুটবল সচিব স্বপন ব্যানার্জির ঘরে গিয়ে বসেন।
সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে দুই প্রাক্তনের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন সুব্রত। বলে দেন, সত্যজিৎ, শিশির দু’‌জনেরই মোহনবাগানের সদস্যপদ বাতিল করে দেওয়া উচিত। শিশিরের উদ্দেশে সুব্রত বলেন, ‘অল্প টাকা বেশি পাওয়ার জন্য ইস্টবেঙ্গলে চলে গিয়েছিল শিশির। অনেকবার ওকে বারণ করেছিলাম। তখন ক্লাব প্রীতি কোথায় ছিল? এরা এসেছে, খেলেছে, ক্লাব থেকে টাকা নিয়ে গেছে। ক’দিন আসে ক্লাবে? কী জানে ক্লাব প্রশাসনের?’
সুব্রতর নিশানা থেকে বাদ যাননি সত্যজিৎও। সুব্রত বলেন, ‘ও সাংবািদক বৈঠকে বলেছে, ও নাকি ৮৮টা ডার্বি খেলেছে। বাজে কথা। বছরে গড়ে ৪টে করে ডার্বি খেললেও ৮৮টা ডার্বি খেলতে ২২ বছর খেলতে হবে। ও কি খেলেছে ২২ বছর? বলার হলে, এ সব কথা আমার সামনে এসে বলুক। ওদের চেয়ে আমার অবদান অনেক বেশি।’ একটু থেমে সুব্রত জুড়ে দেন, ‘কৃতিত্বই মানুষকে স্বীকৃতি দেয়। ওদের কী কৃতিত্ব আছে?‌ ওরা ক্লাবে আসে উদ্দেশ্য নিয়ে।’
সুব্রতর বক্তব্য নিয়ে সত্যজিৎ, শিশিররা কোনও প্রতিক্রিয়া দিতে চাননি। সুব্রত বলেন, আরও বেশি করে মোহনবাগান ক্লাবে প্রাক্তন খেলোয়াড়দের যুক্ত করতে হবে।
নতুন মরশুমের জন্য টিডি–র প্রস্তাব ফিরিয়েছেন। আই লিগের আগে টিডি–র প্রস্তাব পেলে কি গ্রহণ করবেন? উত্তরে সুব্রত বলেন, ‘এখন আমি ভবানীপুরের কোচ। আই লিগ অনেক দেরি আছে। আই লিগের আগে প্রস্তাব পেলে তখন ভাবব।’ সুব্রতকে নিয়ে দুই গোষ্ঠীর অঙ্ক–কষাকষি চলছেই।‌

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জনপ্রিয়

Back To Top