One Love Armband: 'ওয়ান লাভ' আর্মব্যান্ড নিয়ে ফিফার ফতোয়া মানা হচ্ছে না মাঠের বাইরে

আজকাল ওয়েবডেস্ক: মাঠে ফুটবলাররা 'ওয়ান লাভ' আর্মব্যান্ড পড়ে নামতে না পারলেও ফিফার ফতোয়া মানছেন না নেতা, মন্ত্রীরা।

রক্ষণশীল কাতার প্রথমেই সমকামিতাকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছিল। দেশের আইন অনুযায়ী, সমকামী প্রেম অপরাধ। তাই বিশ্বকাপে সমকামীদের কাতারে প্রবেশের ওপরও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। কিন্তু সমকামীদের অধিকার রক্ষায় সামিল হয়েছিল কয়েকটি দেশ। এই তালিকায় ছিল ইংল্যান্ড, নেদারল্যান্ডস, ফ্রান্স, বেলজিয়াম, জার্মানি প্রমুখ। এই প্রতিবাদের অঙ্গ হিসেবে একটি বিশেষে আর্মব্যান্ড তৈরি করা হয়েছে। যার নাম 'ওয়ান লাভ' আর্মব্যান্ড। হ্যারি কেনরা জানিয়ে দিয়েছিল, এই আর্মব্যান্ড পরেই মাঠে নামবেন তাঁরা। বিশ্বকাপ শুরুর আগে ফিফাও জানিয়ে দিয়েছিল, আর্মব্যান্ডের মাধ্যমে সামাজিক বার্তা দেওয়া যেতেই পারে। কিন্তু পরবর্তীকালে জানানো হয়, 'ওয়ান লাভ' ব্যান্ড পরে নামলে দলের অধিনায়ককে হলুদ কার্ড এবং দলকে জরিমানা করা হবে। তাই শাস্তির আশঙ্কায় দলগুলোকে সিদ্ধান্ত বদলে ফেলতে হয়েছে। কিন্তু তাতে সমকামিতার পক্ষে সওয়াল রোখা সম্ভব হয়নি। গ্যালারিতে 'ওয়ান আর্ম' ব্যান্ড পড়ে দেখা যায় বিভিন্ন দেশের মন্ত্রীদের। বেলজিয়াম-কানাডা ম্যাচ চলাকালীন গ্যালারিতে হাজির ছিলেন বেলজিয়ামের বিদেশ মন্ত্রক হাজবা লাজিব। তাঁর হাতে ছিল সেই বিশেষ ব্যান্ড। এমনকী ফিফা সভাপতি ইনফ্যান্টিনোর সঙ্গে কথা বলার সময়ও 'ওয়ান লাভ' আর্মব্যন্ড তাঁর হাতেই ছিল। জার্মানির ম্যাচেও একই চিত্র দেখা গেল। দেশের ইন্টিরিয়র মিনিস্টার ন্যান্সি ফেজার ফিফা প্রেসিডেন্টের পাশে বসেই খেলা দেখেন। তাঁর হাতেও এই বিশেষ ব্যান্ড ছিল। এমনকী জাপান ম্যাচের আগে ফটোসেশনের সময় অভিনব প্রতিবাদ জানায় জার্মানিও। ফিফার ফতোয়া বর্জন করে এই ব্যান্ড নিতে সোচ্চার কাতার। 

আকর্ষণীয় খবর