কোভিড প্রভাবিত দেশগুলোর জন্য নয়া নিয়ম জারি টোকিও অলিম্পিক কমিটির, সিদ্ধান্তের কড়া সমালোচনা ভারতীয় অলিম্পিক সংস্থার

আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ভারত সহ যে সমস্ত দেশগুলোতে করোনা মাত্রাতিরিক্ত প্রভাব ফেলেছে, সেই দেশের অ্যাথলিটদের জন্য টোকিও অলিম্পিক কমিটি নয়া নিয়ম কার্যকর করল। আর তা নিয়ে যথেষ্ট বিরক্ত ভারতীয় অলিম্পিক সংস্থা। 
জুলাইতে টোকিওয় বসছে অলিম্পিকের আসর। তার আগে ভারত সহ যে সমস্ত দেশে করোনা অতিরিক্ত প্রভাব ফেলেছে, সেই সমস্ত দেশের অ্যাথলিটদের টোকিও উড়ে আসার এক সপ্তাহ আগে থেকেই নিয়মিত করোনা পরীক্ষা করাতে হবে। এমনকি জাপানে আসার পর অন্তত তিনদিন অন্য দেশের অ্যাথলিটদের সঙ্গে তাঁরা মিশতে পারবেন না। থাকতে হবে দূরে। ভারতীয় অলিম্পিক সংস্থা এই নিয়মের তীব্র সমালোচনা করেছে। সংস্থার সভাপতি নরিন্দর বাত্রা বলেছেন, ‘‌এর ফলে অ্যাথলিটরা অনুশীলনের জন্য তিনদিন সময় কম পাবে। এমনকি অ্যাথলিটদের নিজস্ব ইভেন্টের পাঁচদিন আগে গেমস ভিলেজে আসতে বলা হয়েছে।’‌ বাত্রার কথায়, ‘‌ইভেন্ট শুরুর আগে তিনদিন সময় নষ্ট মানে ফোকাস নষ্ট হয়ে যাওয়া। ওইসময়ই অ্যাথলিটরা শেষ পর্বের প্রস্তুতিতে ব্যস্ত থাকে। ভারতীয়দের জন্য অত্যন্ত খারাপ খবর। পাঁচ বছর ধরে যাঁরা প্রস্তুতি নিয়েছে, তাঁদের উৎসাহটাই নষ্ট হয়ে যাবে।’‌ 
যে ১১ টি দেশকে এই তালিকায় রেখেছে টোকিও অলিম্পিক কমিটি, তার মধ্যে ভারত ছাড়াও পাকিস্তান, ব্রিটেন রয়েছে। ভারতীয় অলিম্পিক কমিটির তরফে বলা হয়েছে, ‘‌গেমস ভিলেজে সব দেশের অ্যাথলিটরা একসঙ্গে খাবার খায়। এবার এই যে তিনদিন কারও সঙ্গে মেলামেশা করা যাবে না, তখন প্রতিযোগীরা ব্রেকফাস্ট, লাঞ্চ ও ডিনার কোথায় করবে?‌ অনুশীলনই বা করবে কোথায়? তা বলা হয়নি আয়োজকদের তরফে‌।’‌ এটা ঘটনা ভারতের সব ক্রীড়াবিদই টিকা নিয়ে টোকিও রওনা হচ্ছেন। তারপরেও কেন ভারতের সঙ্গে এই দ্বিচারিতা। উঠছে প্রশ্ন।
এদিকে, টোকিও অলিম্পিকে স্টেডিয়ামে সর্বোচ্চ ১০ হাজার দর্শককে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হতে পারে। তবে সংক্রমণ বাড়লে যে ক্লোজড ডোর ইভেন্ট হবে, সে কথাও জানানো হয়েছে আয়োজকদের তরফে। স্টেডিয়ামে মোট দর্শকাসনের ৫০ শতাংশ ভর্তি থাকবে।