আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ শেষপর্যন্ত ডোনাল্ড ট্রাম্পের মনে পড়ল মহাত্মা গান্ধীকে। তাঁর কর্মস্থলে নয়, ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের নায়ককে তাঁর সমাধিস্থলে গিয়ে অবশেষে তাঁকে প্রাপ্য সম্মানটুকু দিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।
মঙ্গলবার সকালে রাজঘাটে মহাত্মা গান্ধীর সমাধিস্থলে পুষ্পার্ঘ্য দিয়ে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করেন সস্ত্রীক ডোনাল্ড ট্রাম্প। তারপর সেখানের ভিজিটর্স বুকে লেখেন, ‘‌মহান্‌ মহাত্মা গান্ধীর চোখে দেখা সার্বভৌম এবং সুন্দর ভারতের পাশে সর্বশক্তিতে দাঁড়াবে আমেরিকার মানুষরা।

এটা দারুণ সম্মানের।’‌ রাজঘাটে তাঁকে গান্ধীজির একটি আবক্ষ মূর্তি উপহার দেন কেন্দ্রীয়মন্ত্রী হরদীপ পুরী। রাজঘাটে একটি চারাগাছও পোঁতেন ট্রাম্প।
রাজঘাটে গান্ধীজির উদ্দেশ্যে ট্রাম্পের এই বার্তা আসলে তাঁর সোমবারের সবরমতী আশ্রমের ভিজিটর্স বুকে লেখা বার্তার জেরে ওঠা সমালোচনার ঝড়কে কিছুটা লঘু করতেই বলে মনে করছে বিশেষজ্ঞ মহল। কারণ সোমবার গান্ধীজির কর্মভূমি তথা ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের মূল ভরকেন্দ্র সবরমতী আশ্রম মোদির সঙ্গে সস্ত্রীক ঘুরে দেখার পর ট্রাম্প ভিজিটর্স বুকে গান্ধীজিকে নিয়ে একটিও শব্দ না খরচ করে তাঁর এই সফরের আয়োজনের জন্য শুধু তাঁর ‘‌প্রিয় বন্ধু মোদি’‌–কে ধন্যবাদ জানান।

ঘটনা জানাজানি হতেই দেশজুড়ে শুরু হয় তীব্র সমালোচনা। অনেকেই তাঁর পূর্বসূরী বারাক ওবামার সঙ্গে তাঁর তুলনা টানেন। কারণ, কয়েক বছর আগে প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ভারত সফরে এসে সবরমতী পরিদর্শন শেষে ভিজিটর্স বুকে লিখেছিলেন, ‘‌গান্ধীজির এই কর্মকাণ্ড দেখার সুযোগ পেয়ে আমি আশা আর উৎসাহে পরিপূর্ণ হয়ে গিয়েছি। উনি শুধু ভারতেরই নন, সারা বিশ্বের নায়ক ছিলেন।’‌ ওবামার ওই নোটের প্রশংসাও করেছিলেন সবাই।
ছবি:‌ এএনআই     ‌

জনপ্রিয়

Back To Top