আজকাল ওয়েবডেস্ক: চলতি বছরে উবার সংস্থা সংবাদ শিরোনামে আসে তাঁদের সিইও যৌন হেনস্থার অভিযোগে জড়িয়ে পড়ার পর। বাধ্য হয়ে ট্র‌্যাভিশ কালানিককে পদত্যাগ করতে হয়। আবার ‌আধার–তথ্য ফাঁস নিয়ে যখন তোলপাড় হচ্ছে দেশের জাতীয় রাজনীতি তখন গ্রাহকদের তথ্য ফাঁসের চাঞ্চল্যকর অভিযোগ উঠল অ্যাপ ক্যাব সংস্থা উবারের বিরুদ্ধে। অভিযোগ উঠেছে, ৬ কোটি গ্রাহকের নাম, ফোন নম্বর, ইমেল আইডি ফাঁস হয়েছে সংস্থার কম্পিউটার থেকে। বিপাকে পড়ে ঘটনার কথা স্বীকার করতে বাধ্য হয় সংস্থাও। 
জানা গিয়েছে, রোজের ব্যস্ততায় অনেকেরই সহায় উবার। মোবাইল ফোনের স্ক্রিনে ক্লিক করলেই দরজায় হাজির উবারের শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত গাড়ি। কিন্তু সংস্থাকে দেওয়া গ্রাহকের তথ্য ফাঁস হয়ে গিয়েছে জানলে নিশ্চয়ই এই পরিষেবা ব্যবহারের আগে দু’‌বার ভাববেন অনেকেই। এক বছর ধরে এই ঘটনা ঘটলেও ব্যাপারটা পুরোপুরি গোপন রেখেছিল উবার। সম্প্রতি ব্লুমবার্গের প্রতিবেদনে এই ঘটনা প্রকাশিত হয়। প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে, ২০১৬ সালে উবারের সার্ভার হ্যাক করে একদল হ্যাকার। সেই সময় সংস্থার ৬ কোটি গ্রাহক এবং চালকের ব্যক্তিগত তথ্য চুরি যায়।
খবরের সত্যতা স্বীকার করে বিবৃতি দিয়েছে উবার সংস্থাও। এমনকী এই ঘটনার কথা যাতে বাইরে কোনওভাবে ফাঁস না হয় তার জন্য হ্যাকারদের এক লক্ষ ডলারও দেওয়া হয়েছিল সংস্থার পক্ষ থেকে। তবে এখন, হ্যাকারদের মাধ্যমে চুরি যাওয়া এই সব তথ্য মুছে ফেলা হয়েছে বলে দাবি করেছে সংস্থা। বাড়ানো হয়েছে নিরাপত্তা। সংস্থা সূত্রে খবর, এই ঘটনার পর সংস্থার নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা বেশ কয়েকজন আধিকারিককে বরখাস্ত করা হয়েছে। উবারের সিইও দারা খোসরুশাহি এই ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে ক্ষমা চেয়েছেন। দারা বলেন, ‘এমন ঘটনা কখনওই প্রত্যাশিত নয়। আমরা দুঃখিত। এই ধরনের ঘটনা ভবিষ্যতে আর কখনও ঘটবে না।’ ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top