আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌  ঠিক যেভাবে ঈশ্বর কণার সঙ্গে জুড়ে আছে বাঙালি বিজ্ঞানী সত্যেন্দ্রনাথ বসুর নাম। সেভাবেই কৃষ্ণ গহ্বরের গবেষণাতেও রয়েছে আরেক বাঙালি জ্যোতির্বিজ্ঞানী জগদীশচন্দ্র বসুর অবদান। কৃষ্ণ গহ্বরের ছবি তুলতে ব্যবহৃত ইভেন্ট হরাইজন টেলিস্কোপ বা ইএইচটি যে ফ্রিকোয়েন্সিতে কাজ করেছিল, ১২০ বছরেরও আগে তা প্রথম প্রয়োগ করেছিলেন জগদীশচন্দ্র। 
গত বুধবার বিশ্বের সাতটি শহরে সাংবাদিক সম্মেলন করে একদল জ্যোতির্বিজ্ঞানী এই প্রথম কৃষ্ণ গহ্বরের ছবি পৃথিবীর সামনে আনেন। প্রথম দৃষ্ট কৃষ্ণ গহ্বরের নাম দিয়েছেন বিজ্ঞানীরা ‘‌পাওয়েহি’‌।

পৃথিবী থেকে ৫৫ মিলিয়ন আলোকবর্ষ দূরে মেসিয়ার ৮৭ ছায়াপথে রয়েছে পাওয়েহি।
পুনের ইন্টার–ইউনিভার্সিটি সেন্টার ফর অ্যাস্ট্রোনমি অ্যান্ড অ্যাস্ট্রোফিজিক্সের ডিরেক্টর সোমক রায়চৌধুরি বললেন, ১৮৯৫ সালে কলকাতায় বসে গবেষণার সময় কয়েকশো গিগাহার্টজ্‌ ফ্রিকোয়েন্সিতে কাজ করেছিলেন জগদীশচন্দ্র বসু। কৃষ্ণ গহ্বরের গবেষণাকারী ইএইচটি–ও ওই একই ফ্রিকোয়েন্সিতে গবেষণা করেছে। সোমক আরও জানালেন, ‘‌আইনস্টাইন এক শতকেরও বেশি আগে তাঁর তথ্যে যে কথা বলেছিলেন, সেই ছবিই আমরা আজ দেখতে পেলাম।’‌ 

জনপ্রিয়

Back To Top