আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ পরিকল্পনাটা আগেই ভাবা হয়েছিল। অপেক্ষা ছিল শুধু বাস্তবায়নের। এবার সময় হয়ে এসছে পরিকল্পনাকে বাস্তব করার। তাই দেশের সীমান্তের ওপর আরও কড়া নজর রাখতে নয়া পদক্ষেপ করতে চলেছে ইন্ডিয়ান স্পেস রিসার্চ অর্গানাইজেশনের (ইসরো)। কেন এই মহাকাশ থেকে নজরদারি?‌ সূত্রের খবর, সীমান্তে পাকিস্তান নানা ছক করছে। একদিকে নাশকতামূলক কাজ অন্যদিকে জঙ্গি ঢুকিয়ে দেওয়ার ছক। শুধু তাই নয়, ড্রোন পাঠানো থেকে শুরু করে চীনের আগ্রাসন ঠেকাতেই এই পদক্ষেপ।
কিন্তু কীভাবে সফল হওয়া যাবে?‌ জানা গিয়েছে, মোট তিনটি আর্থ অবজারভেশন স্যাটেলাইট পাঠানোর প্রস্তুতি প্রায় চূড়ান্ত। তার মধ্যে প্রথম উপগ্রহটি পাঠানো হবে আগামী ২৫ নভেম্বর সকাল ৯টা ২৮ মিনিটে এবং বাকি দুটি পাঠানো হবে ডিসেম্বর মাসে। এই তিনটি প্রধান কৃত্রিম উপগ্রহের পাশাপাশি তিনটি পিএসএলভি রকেট মহাকাশে নিয়ে যাবে ২৪টির বেশি ন্যানো ও মাইক্রো উপগ্রহ।
ইসরো সূত্রে খবর, শ্রীহরিকোটা থেকে পিএসএলভি সি–৪৭ রকেটটি করে মহাকাশে পাঠানো হবে তৃতীয় জেনারেশনের আর্থ ইমেজিং স্যাটেলাইট কার্টোস্যাট–৩। এছাড়াও এই রকেটেই যাবে আমেরিকা থেকে আমদানি করা ১৩টি বাণিজ্যিক ন্যানো স্যাটেলাইট। ডিসেম্বর মাসে শ্রীহরিকোটা থেকেই আরও দুটি সার্ভিলেন্স স্যাটেলাইট রিস্যাট–টুবিআর১ এবং রিস্যাট–টুবিআর২ পাঠানো হবে। পিএসএলভি সি৪৮ এবং পিএসএলভি সি৪৯ রকেট এই দুটি উপগ্রহকে মহাকাশে নিয়ে যাবে। উল্লেখ্য, চলতি বছরের নভেম্বরে উপগ্রহ পাঠানো হলেও ২০২০ সালের নভেম্বরে পাঠানো হতে পারে চন্দ্রযান–৩। যার কাজ এখন চূড়ান্ত পর্যায়ে চলছে। 

জনপ্রিয়

Back To Top