আজকাল ওয়েবডেস্ক: বিপদঘণ্টা বেজেই চলেছে আর আমরা অগ্রাহ্য করেই চলেছি। বিশ্ব উষ্ণায়ন নিয়ে যতই বড় বড় সেমিনার, আলোচনা চক্র চলুক না কেন, আদতে লাভের লাভ কিছুই হচ্ছে না। কোপেনহেগেন বিশ্ববিদ্যালয় তাদের সাম্প্রতিকতম গবেষণা পত্রে জানিয়েছে গ্রিনল্যান্ডের বরফ গলছে। এই বরফ সম্পূর্ণ গলে গেলে কী হবে তা ভেবে শিউরে উঠছেন পরিবেশবিদরা। 
সুনিয়ার দ্বিতীয় বৃহত্তম ‘আইস শিট’ রয়েছে গ্রিনল্যান্ডে। আইস শিট হল একটা বড় জায়গা জুড়ে অবস্থিত বরফের চাঙড় বিশেষ। যে চাঙড়টি গলতে শুরু করেছে তা গোটা মুম্বই শহরের চেয়েও আকারে বড়। 
কোপেনহেগেন ইউনিভার্সিটি এবং আর্কটিক ইউনিভার্সিটি একযোগে গবেষণা করে বলছেন, এই আইস শিট যদি পুরোটা গলে যায় তবে সমুদ্রের জলস্তর বৃদ্ধি পাবে সাত মিটারের বেশি। অর্থাৎ পৃথিবীর অনেকগুলো শহর চলে যাবে জলের তলায়। কলকাতা, মুম্বই অবশ্যই আছে সে তালিকায়। তবে বিপদ এখানেই শেষ হচ্ছে না। জলস্তরের বৃদ্ধি এবং তার ফলশ্রুতিতে হওয়া প্লাবনে সারা দুনিয়া ভরে যাবে বর্জ্য পদার্থে। বিজ্ঞানীরা বলছেন, করোনা ভাইরাসের থেকে অনেক বড় বিপদ ডেকে আনবে দুনিয়াব্যাপী এই বর্জ্য। 
গ্রিনল্যান্ডের মধ্য-পশ্চিমাংশে জেকবশ্যাভেন ড্রেনেজ বেসিনের আইস শিট গলতে দেখেছেন। তাঁরা বলছেন, বরফের চাঙড়টি ধ্বংসের দোরগোড়ায়। অতি অবশ্যই উষ্ণায়নের প্রভাবে এই ঘটনা।     
 

জনপ্রিয়

Back To Top