আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ বেসরকারি জ্যোতির্বিজ্ঞান সংস্থাগুলির জন্য মহাকাশ গবেষণার দরজা খুলে দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। তার ফলে ভারতের মহাকাশ বিজ্ঞান গবেষণা আরও উন্নত স্তরে পৌঁছবে। এমনটাই মনে করছেন ইসরোর চেয়ারম্যান কে সন্তোষ শিবন। বৃহস্পতিবার ডিজিটাল সাংবাদিক সম্মেলনে শিবন বলেন, বেসরকারি কোম্পানির জন্য মহাকাশের দরজা খুলে দিলে মহাকাশ প্রযুক্তির সাহায্যে লাভবান হতে পারবে সারা দেশ। শুধু মহাকাশ ক্ষেত্রেই নয়, বিশ্ব ব্রহ্মাণ্ড অর্থনীতিতেও ভারতীয় শিল্প গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। কারণ এর ফলেই বিশদ হারে কর্মসংস্থান হবে প্রযুক্তি ক্ষেত্রে এবং ভারত বিশ্ব প্রযুক্তি শক্তিক্ষেত্র হয়ে উঠবে।
বুধবারই মোদি নেতৃত্বাধীন কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা স্বশাসিত নোডাল এজেন্সি ‘‌ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল স্পেস, প্রোমোশন অ্যান্ড অথরাইজেশন সেন্টার’‌ বা ইনস্পেস–এর অনুমোদন দিয়েছে। শিবন বললেন, মহাকাশ ক্ষেত্রে বেসরকারি কোম্পানিগুলিকে অনুমোদন দেওয়া এবং সেগুলিকে নিয়ন্ত্রণের ব্যপারে স্বাধীনভাবে সিদ্ধান্ত নিতে সক্ষম এই স্বশাসিত নোডাল এজেন্সি। এটা বেসরকারি কোম্পানিগুলির মহাকাশ গবেষণার কাজকর্মে জাতীয় নোডাল এজেন্সি হিসেবেই কাজ করবে। এব্যাপারে ইসরো তার প্রযুক্তিগত মেধা ভাগ করে নেবে ওই সংস্থার সঙ্গে।  
দীর্ঘদিনের আর্থ–সামাজিক সংস্কারের অঙ্গ হিসেবে মহাকাশ ক্ষেত্রের এই সংস্কার মহাকাশ পরিষেবায় উন্নতি করবে। এর ফলে ভারতের উন্নতি হতে পারে। আশাবাদী ইসরো প্রধান মনে করছেন, এর ফলে জ্যোতির্বিজ্ঞানে উৎসাহী নতুন প্রজন্ম আরও বেশি করে এগিয়ে আসবে মহাকাশ গবেষণায়। মহাকাশ গবেষণায় উৎসাহী বেসরকারি কোম্পানিগুলিকে আহ্বান জানিয়ে শিবন বললেন, এই সংস্কার ভারতকে সেই কয়েকটি দেশের কাছাকাছি নিয়ে যাবে যাতে বেসরকারি ক্ষেত্রগুলি মহাকাশের কার্যকলাপে দক্ষভাবে প্রচার করতে পারে। মহাকাশ দপ্তর রকেট উৎক্ষেপণ, মহাকাশ পরিষেবা সহ বাণিজ্যিকভাবেও মহাকাশ ভিত্তিক কাজে প্রচারমূলক কাজ করবে। 
ছবি:‌ এএনআই
ছবি:‌ এএনআই

জনপ্রিয়

Back To Top