আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ পরিবেশ আর উন্নয়ন, বরাবরই পরস্পর বিরোধী। তারই অন্যতম উদাহরণ মিলল আমাদের দেশেই। রিপোর্টে প্রকাশ, বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের জন্য ২০১৫–১৮–র মধ্যে  প্রায় ২০০০০ হেক্টর বনভূমি হারিয়েছে দেশ। এই পরিমাণ, কলকাতা শহরের সমান।
সংসদে গত মাসে সরকার একটি রিপোর্ট পেশ করে বলেছে, ২০১৫ থেকে ২০১৮ সালের ১৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত ২০৩১৪.‌১২ হেক্টর বনভূমি দেওয়া হয়েছে উন্নয়নমূলক কাজে। এই সময়ের মধ্যে সরকারের কাছে উন্নয়নমূলক ৪৫৫২টি প্রস্তাব এসেছিল এবং তার মধ্যে ১২৮০টি বা ২৮.‌১১ শতাংশ প্রস্তাব অনুমোদিত হয়েছে।
যে সব রাজ্যে বনভূমি উন্নয়নের জন্য নষ্ট হয়েছে বা হচ্ছে তার মধ্যে সর্বপ্রথম তেলঙ্গনা। সেখানে ৫১৩৭.‌৩৮ হেক্টর বনভূমি নষ্ট হয়েছে। তারপর মধ্য প্রদেশে ৪০৯৩.‌৩৮ হেক্টর এবং ওড়িশাতে ৩৩৮৬.‌৬৭ হেক্টর বনভূমি নষ্ট হয়েছে। এই তিন রাজ্য মিলিয়ে প্রায় ৬২ শতাংশ বনভূমি নষ্ট হয়েছে গত তিন বছরে।
১৯৮০ সালের বন সংরক্ষণ আইন অনুযায়ী, পরিবেশ মন্ত্রক খনির কাজ বা ওই ধরনের কাজের জন্য বনভূমি দিতে পারে। তার বদলে টাকা পায় মন্ত্রক। সেই টাকায় নতুন করে বনসৃজন করাই আইন। কিন্তু পরিবেশবিদরা বলছেন, গত ১০ বছরে এভাবে বনভূমি উন্নয়নের কাজে দেওয়া হলেও বন সৃজন হয়নি। যদিও পরিবেশ মন্ত্রকের অফিসাররা সেই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে দাবি করছেন, এর মধ্যে অনেক প্রস্তাবই অনুমোদনের বিভিন্ন স্তরে আছে। পরিবেশ মন্ত্রকও এধরনের কাজের জন্য বনভূমি দেওয়ার পক্ষে যথেষ্ট ওয়াকিবহাল।           ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top