আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ পেরু থেকে মেক্সিকো, ইরান থেকে জাপান— গত কয়েক বছরে একের পর এক বড় বড় ভূমিকম্পে কেঁপে উঠেছে পৃথিবী। কিন্তু এখানেই শেষ নয়, দুই মার্কিন বিজ্ঞানীর ভবিষ্যদ্বাণী সত্যি হলে পরবর্তী বছরগুলিতে আর ভয়ঙ্কর ভূমিকম্পের মুখোমুখি হতে চলেছে আমাদের এই গ্রহ। কলোরাডো বিশ্ববিদ্যালয়ের রজার বিলহ্যাম ও মন্টানা বিশ্ববিদ্যালয়ের রেবেকা বেনডিক তাঁদের গবেষণাপত্রে পৃথিবীর ঘূর্ণন গতির সঙ্গে বিশ্বব্যাপী ভূমিকম্পের একটি সুস্পষ্ট সম্পর্কের বিষয়টি তুলে ধরেছেন। তাদের গবেষণা অনুযায়ী, বিগত ১০০ বছরের পাঁচটি ঘটনার ক্ষেত্রে দেখা গেছে, বছরে ৭ মাত্রা বা এর চেয়ে বড় ভূমিকম্পের সংখ্যা ২৫ থেকে ৩০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। আর এর সঙ্গে পৃথিবীর গড় ঘূর্ণন গতি মন্থর হয়ে যাওয়ার সম্পর্ক রয়েছে। আসলে পৃথিবীর ঘূর্ণন গতি ধীরে ধীরে কমছে। আর এটাই ব্যাপক মাত্রার ভূগর্ভস্থ শক্তি বিচ্ছুরণের জন্য যথেষ্ট। বিলহ্যাম ও বেনডিক তাঁদের গবেষণাপত্রে এ ব্যাপারে নির্দিষ্ট ব্যাখ্যা দিতে না পারলেও তাঁদের সন্দেহ, পৃথিবীর কেন্দ্রের এ সামান্য পরিবর্তনই বড় ধরনের ভূমিকম্পের জন্য দায়ী। দুই বিজ্ঞানী আরও জানিয়েছেন, পৃথিবী এই মুহূর্তে একটি পাঁচ বছর মেয়াদি উচ্চতর ভূকম্পন পর্যায়ে প্রবেশ করেছে। বিজ্ঞানীরা এখন পর্যন্ত সঠিকভাবে ভূমিকম্পের পূর্বাভাস দিতে সফল হননি। ফলে বিলহ্যাম ও বেনডিকের কথা কতটা সত্যি হবে, তা আগামী পাঁচ বছরই বলে দেবে।‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top