আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ এই ব্রহ্মাণ্ডে আজও ছড়িয়ে আছে প্রচুর রহস্য। তার খুব অল্প অংশই এখনও পর্যন্ত আবিষ্কার করা গিয়েছে। তারই প্রমাণ মিলল নতুন করে।
গত ১৯ অক্টোবরে পৃথিবীর উপর দিয়ে গিয়েছে একটি অদ্ভূতদর্শন গ্রহাণু। সিগারের মতো দেখতে ওই গ্রহাণুর নাম জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা দিয়েছেন ওউমুয়ামুয়া। অক্টোবরে আকাশে দেখতে পাওয়ার পরই তাকে নিয়ে গবেষণা শুরু করে দেন বিজ্ঞানীরা। সম্প্রতি বিজ্ঞানভিত্তিক পত্রিকা ‘‌নেচার’‌–এ হাওয়াই বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক কারেন মিচনের নেতৃত্বাধীন গবেষক দল নতুন তথ্য প্রকাশ করেছেন। তথ্য বলছে, ওউমুয়ামুয়া প্রায় ৪০০ মিটার লম্বা এবং তার প্রায় ১০ গুণ চওড়া। দেখলে ঠিক যেন মনে হয় মহাশূন্যে ভেসে বেড়াচ্ছে বিশাল একটা সিগার। 
আমাদের সৌরমণ্ডলের বাকি গ্রহাণুর থেকে দেখতে একেবারেই ভিন্ন ওউমুয়ামুয়া নিজের অক্ষরেখায় প্রতি ৭.‌৩ ঘণ্টায় ঘুরছে। লাল রং–এর গ্রহাণুটি ঘন, পাথুরে, জল বা বরফবিহীন এবং সম্ভবত তার মধ্যে রয়েছে প্রচুর ধাতুও। কয়েক কোটি বছর ধরে মহাজাগতিক রশ্মির বিকিরণের ফলেই ওউমুয়ামুয়ার রং লালচে হয়ে গিয়েছে বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা। বিজ্ঞানী দলের প্রধান মিচ জানিয়েছেন, এই গ্রহাণুটি কোনও নক্ষত্রমণ্ডলের সঙ্গে যুক্ত নয়। কয়েকশো কোটি বছর ধরে এটা আকাশগঙ্গার মতো নক্ষত্রপুঞ্জের মাঝ দিয়ে যাতায়াত করেছিল। এবার আমাদের সৌরমণ্ডলে ঢুকে পড়েছে। এধরনের বেশ কিছু গ্রহাণুর উপস্থিতি সম্পর্কে বিজ্ঞানীরা অবগত হলেও এতদিন তার কোনও প্রমাণ ছিল না। মিচ বলেছেন, ওউমুয়ামুয়া গত ১ তারিখ মঙ্গলের উপর দিয়ে গিয়েছে। ২০১৮ সালের মে মাস নাগাদ সে সৌরমণ্ডলের বৃহত্তম গ্রহ বৃহস্পতিতে পৌঁছবে এবং তার পরের বছরই শনির কাছে পৌঁছনোর পর আমাদের সৌরমণ্ডল ছেড়ে বেরিয়ে যাবে। 

নতুন গ্রহাণু ওউমুয়ামুয়া। ছবি সৌজন্য:‌ নাসা         ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top