আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ কম খরচে কার্যকর। এই শব্দবন্ধটাই খাটে চাঁদের উদ্দেশ্যে তৈরি ইসরোর আগামী মহাকাশযান চন্দ্রযান–২–এর ক্ষেত্রে। ইসরোর সাম্প্রতিক তথ্যে প্রকাশ, ২০১৪ সালে তৈরি বিগ বাজেট হলিউডি ছবি ‘‌ইন্টারস্টেলার’‌–এর থেকেও অনেক কম খরচে চন্দ্রযান–২ তৈরি করেছে তারা। যেখানে ‘‌ইন্টারস্টেলার’ তৈরিতে খরচ হয়েছিল ১,০৬২ কোটি টাকা সেখানে চন্দ্রযান–২ তৈরিতে খরচ হয়েছে মাত্র ৮০০ কোটি টাকা। এমনকি ২০১৩ সালে উৎক্ষেপিত মঙ্গলযানও তৈরিতেও খরচ হয়েছিল ৪৭০ কোটি টাকা। অথচ, ওই বছরই মুক্তিপ্রাপ্ত অস্কারজয়ী বিগ বাজেট হলিউডি ছবি ‘‌গ্র‌্যাভিটি’‌ তৈরিতে খরচ হয়েছিল ৬৪৪ কোটি টাকা। এত কম খরচে মহাকাশযান তৈরি সম্পর্কে ইসরোর ডিরেক্টর কে সিবান বললেন, পুরো প্রক্রিয়াটিকে সহজ করে নেওয়া, বড় জটিল ব্যবস্থাকে ছোট করে ভেঙে নেওয়া, গুণমান নিয়ন্ত্রণে কঠোর পদ্ধতি এবং কোনও একটি পণ্য থেকে যতটা সম্ভব ব্যবহার করার ফলেই কম খরচে মহাকাশযান তৈরি সম্ভব হয়েছে ইসরোর পক্ষে।

কোনও মহাকাশযান বা রকেটের উপর কড়া নজরদারি করে ইসরো, যাতে কোনও জিনিস অযথা নষ্ট না হয়।
প্রসঙ্গত, আগামী এপ্রিলে চন্দ্রযান–২ উৎক্ষেপণের পরিকল্পনা আছে ইসরোর। ভোর থেকে সন্ধ্যার মধ্যে চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে কয়েক কোটি বছরের পুরনো পাথুরে জমিতে নামতে পারে চন্দ্রযান–২। শুধু চাঁদে নামাই নয়, পুরো অভিযানের সাফল্যের জন্য রোভার ওয়াকেরও পরিকল্পনা আছে ইসরোর। মহাকাশযান চাঁদে নামার পর সেখানে থেকে খোলা হবে ৬ চাকার রোভার ওয়াকার। তারপর ১০০–২০০ মিটার ঘুরবে ওই রোভার। পৃথিবীর সময়ে ১৪ দিন সক্রিয় থাকবে রোভার ওয়াকার। সিবান বলেছেন, প্রথে রাশিয়া রোভার ল্যান্ডার দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়। কিন্তু পরে ইসরোর বিজ্ঞানীরা নিজেরাই রোভার তৈরি করেছেন। তবে এপ্রিলে চন্দ্রযান–২–এর অভিযান সফল না হলে আগামী নভেম্বরে তা পিছিয়ে দেওয়া হবে বলে জানালেন ইসরোর ডিরেক্টরে।        ‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top