Durga Puja 2021: কাদা-মাটি ছেড়ে টেকনোলজির হাত ধরছে কুমোরটুলি, কোন প্রযুক্তি ব্যবহার হচ্ছে? 

পর্নী ব্যানার্জি: কথায় বলে ‘বাঙালির বারো মাসে তেরো পার্বণ’। তবে বাংলার নিজস্ব আড়ম্বরপূর্ণ উৎসব হল দুর্গাপুজো। কাদা, মাটি দিয়ে তৈরি মূর্তি সাড়া ফেলে দিয়েছে বিশ্বজুড়ে। তবে এবার দুর্গা মূর্তি তৈরিতে ব্যবহার হচ্ছে টেকনোলজি। ফাইবার গ্লাস ব্যবহারের পাশাপাশি মূর্তি তৈরিতে অ্যানিমেশন, টাইমার, অটোমেশন, সেন্সর সহ একাধিক উন্নত প্রযুক্তি আনতে চলেছেন কুমোরটুলির শিল্পীরা। 

ঢাকে কাঠি পড়ে গিয়েছে। মা দুর্গার আগমনের দিন গোনা চলছে। প্রস্তুত শিল্পীরাও। এই বছর কুমোরটুলির প্রতিমা নির্মাতারা নিচ্ছেন স্মার্ট পদক্ষেপ। শিল্পী গোবিন্দ পালের কথায়, ‘আমরা প্রতিমা তৈরির জন্য তিন ধরনের রাসায়নিক মিশিয়ে ব্যবহার করছি। সেগুলি হল-রেজিন, ক্যাডলিস এবং অ্যাকসোলিট্রে।’
কুমোরটুলির জনপ্রিয় শিল্পী মালা পাল বলেন, ‘ফাইবার গ্লাসে তৈরি প্রতিমার এক ঝলক দেখতে হলে কলকাতার বেলঘরিয়া, দমদম, সল্টলেক যেতে হবে। দিল্লি, হরিদ্বারেও এই ধরনের মূর্তি পাঠানো হবে।' 

আরও পড়ুন: পুজো উপলক্ষ্যে অভিনব উদ্যোগ রেলের, বড় স্টেশনে মিলবে মনপসন্দ বাঙালি খাবার 


এবার মালা পালের সম্পর্কে একটু বলি। যদিও ইতিমধ্যেই অনেকে জানেন তাঁর জীবনযুদ্ধের কাহিনী। ছোট থেকেই তাঁর প্রতিমা তৈরির প্রতি ঝোঁক ছিল। কিন্তু বাবার সম্মতি ছিল না। মেয়েদের মূর্তি তৈরির কথা ভাবনার অতীত তখন। তবে বাবা মারা যাওয়ার পর পরিবারে দেখা যায় অভাব, অনটন। তখন মালার বয়স ১৪। ভাই গোবিন্দ পালের সাহায্য নিয়ে প্রথম মাটির মূর্তি তৈরি করেন। সেই থেকেই পথ চলা শুরু। পরে অবশ্য তিনি 'ক্লে মডেলিং'য়ের ওপর মাস্টার্স কোর্স করেছেন। এখন মালা রায়ের প্রচুর স্টুডেন্ট। একই সঙ্গে ভাই-বোন মিলে দেশ বিদেশে ওয়ার্ক শপও করেন।

আরও পড়ুন: পুজোয় দেব বনাম জিৎ, সিনেমা হল মাতাতে চলেছে দু’জনের ছবিই