আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ মৎস্য মারিব খাইব সুখের মত এই রেস্তোরাঁয় অনেকটা সাপ মারিব খাইবো সুখে, এমনই নীতিতে বিশ্বাসী। আপনার পছন্দ মত জ্যান্ত সাপ সেদ্ধ অথবা ভাজা চোলাইয়ে সঙ্গে পরিবেশন করা হয় এই রেস্তোরাঁয়। শুনে পিলে চমকে যাওয়ার অবস্থা হবে ঠিকই কিন্তু রেস্তোরাঁর ভিড় দেখলে মনে হবে না সাপ দেখলে মানুষ আঁতকে ওঠে।  মেনু কার্ড দেখে অর্ডার দিতেই দিব্য টেবিলের উপর হাজির হচ্ছে গরম সেদ্ধ অথবা ভাজা রকমারি সাপ।

সঙ্গে নুন লঙ্কা। আর রাইস ওয়াইন বা চোলাইয়ের সঙ্গে মিশিয়ে দেওয়া হয় সাপের লাল রক্ত। 
সেটাই পেটপুরে সানন্দে খেয়ে চলেছেন অসংখ্য মানুষ। ভিয়েতনামের হ্যানয় থেকে তিন ঘণ্টা সময় লাগে এই রেস্তোরাঁয় পৌঁছতে। তাতে কী হয়েছে অসংখ্য সর্প প্রেমী মানুষ হাজির হয়ে যান সেখানে। দিনরাত বলতে গেলে চলে সর্পবিলাস। 
রেস্তোরাঁর শেফ দিন তিয়েন দাঙ অবলীলায় একটি জ্যান্ত সাপকে ধরেন। মাথাটা হাতের মুঠোয় চেপে ধরে একটি লম্বা ছুরি দিয়ে চিড়ে ফেলেন সর্পিল শরীর।

 তাজা রক্ত সাপের শরীর বেয়ে গড়িয়ে পড়তে থাকে। আর সেই রক্ত ফোঁটা ফোঁটা হয়ে জমা হতে থাকে রাইস ওয়াইন বা চোলাইয়ের গ্লাসে। শেফের কথায় সাপের মাথা ছাড়া পুরো শরীরটাই কোনও না কোনও খাবারে ব্যবহার করেন তাঁরা। 
৫০ এর বেশি বয়স হলেই পুরুষদের সাপের রক্ত পান করা জরুরি। এতে নাকি তাঁরা নিজেদের যৌবন ধরে রাখতে পারেন। সাপের মাংসের নাকি একাধিক গুণ রয়েছে। দেহের তাপমাত্রা কমাতে সাহায্য করে। এমনকী মাথাব্যাথা কমায় এবং হজম শক্তি বাড়ায়। ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top