আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ অনেকক্ষণ থেকেই কোনও মহিলাকণ্ঠ তাঁকে উদ্ধারের জন্য ‘‌বাঁচাও, বাঁচাও’‌, বলে আর্তনাদ করছিলেন। চিৎকার শুনে এক প্রতিবেশী স্থানীয় থানায় খবরও দেন। অভিযোগ পেয়ে পুলিস যে বাড়ি থেকে আর্তনাদ ভেসে আসছিল সেখানে পৌঁছয়। কিন্তু পুলিসকর্মীরা অবাক হয়ে যায় এই দেখে যে, বাড়ির সামনের বাগানে নিশ্চিন্তে বসে গাড়ির যন্ত্রাংশ লাগাচ্ছেন এক মধ্যবয়স্ক ব্যক্তি। অথচ বাড়ির ভিতর থেকে কোনও মহিলা উদ্ধারের জন্যচিৎকার করছেন। পুলিসকর্মীরা ওই ব্যক্তিকে যখন জিজ্ঞাসা করেন তাঁর স্ত্রী কোথায় তখনই তিনি তাঁদের বাড়ির ভিতর নিয়ে গিয়ে আর্তস্বরের রহস্যোদ্ঘাটন করেন। পুলিসকর্মীদের চক্ষু চড়কগাছ হয়ে যায় যখন তাঁরা দেখেন ‘‌বাঁচাও, বাঁচাও’‌, বলে চিৎকার করছে একটি টিয়াপাখি।
মজাদার এই ঘটনাটি ঘটেছে আমেরিকার ফ্লোরিডা স্টেটের পাম বিচ কাউন্টির অন্তর্গত লেক ওয়র্থ বিচ এলাকায়। পাম বিচ কাউন্টির শেরিফ পরে সাংবাদিকদের জানান, পুলিস অফিসারদের কাছে ওই ব্যক্তি বলেন, র‌্যাম্বো নামে তাঁর ওই টিয়াপাখিটির বয়স ৪০ বছর। পাখিটি তাঁর বাল্যকালের বন্ধু। তখন র‌্যাম্বো খাঁচায় থাকত। সেসময়ই ওই ব্যক্তি র‌্যাম্বোকে ওই শব্দ করতে শিখিয়েছিলেন। বর্তমানে র‌্যাম্বো খাঁচায় না থাকলেও আর্তনাদ করা সে ভোলেনি এবং মাঝেমাঝেই ওইভাবে চিৎকার করে ওঠে। র‌্যাম্বোর কাছে যখন পুলিস পৌঁছয় তখনও সে চিৎকার থামায়নি। পুরো ঘটনা দেখে ওই ব্যক্তির কাছে ক্ষমা চেয়ে হেসে ওঠেন পুলিসকর্মীরা। যে প্রতিবেশী থানায় অভিযোগ করেছিলেন, তিনিও ঘটনা জানতে পেরে র‌্যাম্বোর মালিকের কাছে ক্ষমা চান। পুরো ঘটনা ওই ব্যক্তির বাড়ির সিসিটিভি ফুটেজ থেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করেছে পুলিস। সঙ্গে সঙ্গে তা ভাইরাল হয়েছে। আর র‌্যাম্বোর কীর্তিকলাপে মুগ্ধ হয়েছে নেটিজেনরা।     

জনপ্রিয়

Back To Top