আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ তাঁরা ছিলেন বৃদ্ধাবাসের আবাসিক। নিঃসঙ্গ, পরিবার থেকে ব্রাত্য। অথচ সেই নিঃসঙ্গ জীবনেই তাঁরা পরস্পরের মধ্যে নতুনভাবে খুঁজে পেলেন নিজেদের। নতুন জীবনের স্বপ্ন দেখে তা পূরণও করলেন। ঘটনাটি কেরলের ত্রিশূরের রামবর্মাপুরমের একটি বৃদ্ধাবাসের। ওই বৃদ্ধাবাসের দুই আবাসিক, ৬৫ বছরের লক্ষ্মী আম্মাল এবং ৬৭ বছরের কোচানিয়ান মেনন শনিবার দ্বিতীয়বার বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হলেন।
ঘটনার সূত্রপাত কয়েক বছর আগে। লক্ষ্মীর স্বামীর সহকারী ছিলেন ত্রিশূরের ইরিনজালাকুড়ার বাসিন্দা কোচানিয়ান। সেসময় থেকে পরস্পরকে চিনলেও তা নিছকই পরিচিতি হিসেবেই ছিল। স্বামীর মৃত্যুর পর নিঃসন্তান লক্ষ্মী রামবর্মাপুরমের ওই বৃদ্ধাবাসের আবাসিক হন। সেখানেই ফের কোচানিয়ানের মুখোমুখি হয়ে তিনি জানতে পারেন, পরিবার থেকে তাড়িয়ে দেওয়ায় নিঃসহায় বৃদ্ধ ওই বৃদ্ধাবাসে আশ্রয় পেয়েছেন। এরপর দুজনের স্বল্প পরিচিতি ক্রমশ নিঃসঙ্গতার পাকে জড়িয়ে প্রথমে বন্ধুত্ব তারপর প্রেমে বদলে যায়। নতুন করে ঘর বাঁধার স্বপ্ন দেখা এই বৃদ্ধ–বৃদ্ধা বৃদ্ধাবাসের অন্য আবাসিকদের জানালে তাঁরা বিষয়টা সম্পর্কে কর্তৃপক্ষকে অবগত করে। এরপর বৃদ্ধাবাস কর্তৃপক্ষ, কর্মী এবং অন্য আবাসিকদের উদ্যোগে লক্ষ্মী–কোচানিয়ানের বিয়ের আয়োজন করা হয় শনিবার। বৃদ্ধাবাস কর্তৃপক্ষ রাজ্যের কৃষিমন্ত্রী ভিএস শিবকুমারকে এই বিয়েতে আমন্ত্রণ জানালে, তিনিও অনুষ্ঠানে যোগ দেন। নতুন সঙ্গীর হাত ধরে শেষজীবনে পৌঁছেও নতুনভাবে জীবন শুরু করতে পেরে খুশি নবদম্পতি। আর বৃদ্ধাবাসের মতো নিঃসঙ্গদের জায়গায় এই বিয়ের আয়োজন করতে পেরে আপ্লুত কর্তৃপক্ষও।
ছবি:‌ এএনআই        

জনপ্রিয়

Back To Top