আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ছিলেন খুনি। কিন্তু ছোট থেকেই স্বপ্ন ছিল চিকিৎসক হওয়ার। আর হলেনও তাই। তাও কিনা আবার জেলে বসেই পড়াশোনা করে। অবাক করা এই ঘটনাটি কর্নাটকের কালবুর্গি জেলার। সুভাষ পাটিল নামে ৪০ বছরের ওই ব্যক্তি কালবুর্গিরই আফজলপুরার বাসিন্দা। সংবাদসংস্থা এএনআই–কে শনিবার সুভাষ জানালেন, ১৯৯৭ সালে এমবিবিএস–এ ভর্তি হন তিনি। ২০০২ সালে তৃতীয় বর্ষে পড়ার সময় একটি হত্যায় জড়িয়ে পড়লে তাঁকে গ্রেপ্তার করে পুলিস। চার বছর মামলা চলার পর ২০০৬ সালে কর্নাটকের একটি আদালত তাঁকে ১৪ বছরের কারাদণ্ড দেয়। সেসময় পড়াশোনায় ইতি টেনে সাজা ভোগ করতে যান সুভাষ। কিন্তু জেলেও নিজের ছোটবেলার স্বপ্ন পূরণের ইচ্ছা তাঁর মনের গভীরে রয়েই গিয়েছিল। জেলে তাঁর সুস্বভাবের জন্য সহবন্দি থেকে জেলকর্মী, সবার কাছেই প্রিয় ছিলেন সুভাষ। এরপর ভালো ব্যবহারের জন্য ২০১৬ সালে স্বাধীনতা দিবসের দিন তাঁকে সময়ের আগেই মুক্তি দেয় রাজ্য সরকার। মুক্ত হয়েই ফের এমবিবিএস–এ ভর্তি হন সুভাষ। গতবছর পড়াশোনা শেষ করে পূর্ণ চিকিৎসক হয়েছেন এককালে খুনের সাজা ভোগ করা সুভাষ পাটিল। তাঁর মতোই জেলে নানার অপরাধে সাজা ভোগ করা বন্দিদের উদ্দেশ্যে সুভাষের বার্তা, চেষ্টা করলেই যে কেউ নিজের অন্ধকার জীবন থেকে আলোয় ফিরতে পারবেন। দরকার শুধু সদিচ্ছার।
ছবি:‌ এএনআই   

জনপ্রিয়

Back To Top