‌আজকাল ওয়েবডেস্ক: ‌সন্তান হারানোর যন্ত্রণা বুকে চেপে রেখে নতুন করে জীবন শুরু করা সহজ নয়। বরং অত্যন্ত কঠিন। শুধু নতুন করে জীবন শুরু করা বললে কম বলা হবে। বলা যেতে পারে জীবনের মানেটা পরিষ্কার করে তুলে ধরা মানুষের কাছে। হ্যাঁ, এমনই এক হৃদয় বিদীর্ন ঘটনার সাক্ষী বাণিজ্য নগরী মুম্বই। যেখানে ২০১১ সালে একটি রেল দুর্ঘটনায় ১৮ বছরের ছেলেকে হারিয়ে কোল খালি হয়েছিল দময়ন্তি তান্নার । তাঁর স্বামী প্রদীপ তান্না। এই তান্না দম্পতি নিজেদের ছেলেকে হারিয়ে শোকে ভেঙে না পড়ে একটি ট্রাস্ট খুলেছেন ছেলের নামে। 
কী কাজ হয় এই ট্রাস্ট থেকে? ‌দময়ন্তি তান্না জানান, ‘‌পাঁচ বছর হয়েছে আমরা বিনামূল্যে টিফিন দিচ্ছি। গরিব এবং প্রবীণ নাগরিকদের। একটি দিনও এই পরিষেবা বন্ধ হয়নি। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি এই বিনামূল্যে তাঁদের খাবার পরিবেশন করা হবে যাঁদের সন্তানরা বাবা–মাকে দেখে না। আবার যাঁরা সন্তান হারিয়েছেন আমাদের মত। কিংবা যাঁরা একা থাকেন।’‌
এই দম্পতিদের কাছ থেকে জানা গিয়েছে, প্রথমে ৩০ জনের মত মানুষের জন্য এই ব্যবস্থা করা হয়েছিল। তারপর সময়ের সঙ্গে সঙ্গে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১১০ জন মানুষের পরিষেবায়। সাতজন লোক রেখে এই ব্যবস্থা করা হয়েছে। মুম্বইয়ের বিখ্যাত ডাব্বাওয়ালার সঙ্গেও তাঁরা যুক্ত। সঠিক সময়ে মানুষের মুখে খাবার তুলে দেওয়ার জন্য। তবে সবটাই বিনামূল্যে। পাশাপাশি শিশুদের জন্য জামাকাপড়, পড়াশোনার জন্য বই– খাতা এবং প্রবীণদের জন্য ওষুধ দেওয়া হয়ে থাকে এই ট্রাস্ট থেকে। এখানে ধর্ম, বর্ণ, জাতিভেদ করা হয় না। তাঁরা বিশ্বাস করেন মানুষের সেবার মধ্যেই তাঁদের সন্তান বেঁচে রয়েছে। আর তাতেই প্রশান্তির শ্বাস নেন তান্না দম্পতি। 

ছেলেকে হারিয়ে শোকে ভেঙে না পড়ে একটি ট্রাস্ট খুলেছেন ছেলের নামে। ছবি: এএনআই।

জনপ্রিয়

Back To Top