আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ দাদা–বৌদি তাড়িয়ে দেওয়ার পর বাড়িতে বাড়িতে পরিচারিকার কাজ করতেন সীতালক্ষ্মী। কিন্তু বয়সের ভারে কর্মক্ষমতা কমতে থাকে তাই পরিচারিকার কাজ ছেড়ে শেষে প্রসন্ন অঞ্জনেয়া স্বামী মন্দিরের সামনে ভিক্ষাবৃত্তি শুরু করেন তিনি। প্রায় এক দশক ধরে এই কাজই করছেন তিনি। আর সেটা করেই জমিয়ে ফেলেছেন আড়াই লাখ টাকা। সেই টাকা মন্দিরেই দান করেছেন ৮৫ বছরের বৃদ্ধা সীতালক্ষ্মী। হনুমান জয়ন্তীতে প্রতিবছরই মহাভোজের আয়োজন করা হয় এই মন্দিরে। প্রসাদ নিতে দূরদূরান্ত থেকে ভক্তরা আসেন। এবার তাঁর টাকা দিয়েই এই উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে। 
মন্দিরের বাইরে বসে সীতালক্ষ্মী জানিয়েছেন, ভগবানই আমার সব। এখানে ভক্তরা যাওয়ার সময় তাঁকে যে অর্থ দান করেন সেটা তিনি ব্যাঙ্কে জমিয়ে রাখেন। সেটা জমিয়েই মন্দিরে দান করেছেন তিনি। ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top