আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ সেই ২০১২ সাল থেকে পাকিস্তানের জেলে রয়েছেন তিনি। চরবৃত্তির অভিযোগ উঠেছিল। অবশেষে ওয়াঘা–আট্টারি সীমান্ত দিয়ে দেশে ফিরলেন। ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে থাকার পর নিজের কানপুরের বাড়িতে পৌঁছলেন ৭০ বছরের সামসুদ্দিন। 
প্রায় ৩০ বছর পর পরিবারের সঙ্গে দেখা। চোখের জল আর ধরে রাখতে পারলেন না সামসুদ্দিন। মালা নিয়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন আত্মীয়স্বজন। প্রবীণের তখন একটাই আফসোস, ‘‌খুব ভুল করেছিলাম পাকিস্তান গিয়ে।’‌ গত ক’‌ বছর পাকিস্তানে কীভাবে হেনস্থার শিকার হয়েছেন, সেই খতিয়ানও দিয়েছেন তিনি।
কানপুরের কানঘি–মহলে বাড়ি সামসুদ্দিনে। ১৯৯২ সালে তিন মাসের ভিসা নিয়ে পাকিস্তানে গেছিলেন। তার পর সেখানেই থেকে যান। ১৯৯৪ সালে সেদেশের নাগরিকত্ব পান। ২০১২ সালে পাক সরকার তাঁর বিরুদ্ধে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগ এনে করাচির জেলে বন্দি করে। সেই থেকে সেখানে।
২৬ অক্টোবর শেষ পর্যন্ত দেশে ফেরেন সামসুদ্দিন। অমৃতসরে কোয়ারেন্টাইনে থেকে রবিবার নিজের শহরে ফেরেন। সেখানে তখন উৎসবের মেজাজ। কেউ জড়িয়ে ধরছেন তাঁকে। কেউ মালা পরাচ্ছেন। সামসুদ্দিন কিন্তু কষ্ট ভোলেননি। বলেন, ‘‌পাকিস্তানে ভারতীয়দের সঙ্গে খুব খারাপ ব্যবহার করা হয়। ভারতীয়দের শত্রু ভাবেন ওঁরা। প্রচুর দুর্নীতি, ঘুষ দেওয়া–নেওয়া রয়েছে সেখানে।’‌ 

Back To Top