অভিজিৎ চৌধুরি,পবিত্র মোহান্ত , মালদা ও বালুরঘাট: দু–‌‌একটি বিক্ষিপ্ত ঘটনা, ইতিউতি পরস্পরবিরোধী কিছু অভিযোগ ছাড়া মোটের ওপর শান্তিতেই মিটল উত্তরবঙ্গের তিনটি লোকসভা আসনের ভোট। মঙ্গলবার দক্ষিণ দিনাজপুরের বালুরঘাট এবং মালদার উত্তর ও দক্ষিণ লোকসভা কেন্দ্রে ভোট ছিল। কয়েকটি বিক্ষিপ্ত ঘটনা ছাড়া উৎসবের মেজাজেই ভোট হয়েছে মালদায়। শুধু চাঁচল, কালিয়াচক এবং রতুয়া বিধানসভা কেন্দ্রের দু–‌‌একটি জায়গা থেকে অশান্তির অভিযোগ আসে। তবে আগের দু’‌দফার মতো এই দফাতেও উত্তর ও দক্ষিণ মালদা লোকসভা কেন্দ্রের বেশ কিছু বুথে ইভিএম বিকল হয়ে যাওয়ার খবর আসতে শুরু করে। বিক্ষোভ হয় কালিয়াচক ২ ব্লকের বাঙিটোলা এলাকার ২৪ নম্বর সাকুলাপুর বুথে। এখানে সকাল ১১টা পর্যন্ত ইভিএম বিকল হয়ে পড়ে ছিল। চারবার ইভিএম বদলে ভোট শুরু করতে হয়েছে প্রশাসনকে। 
ভোটের শুরুতেই মালদা উত্তর লোকসভা কেন্দ্রের বাহারালের ৭৯ নম্বর বুথে ইভিএমের সামনে ভোটারদের সঙ্গে বহিরাগতদের আনাগোনার অভিযোগে সেখানকার প্রিসাইডিং অফিসার আনোয়ারুল ইসলামকে সরিয়ে দেয় নির্বাচন কমিশন। মালদা দক্ষিণ লোকসভার কালিয়াচক থানার মহেশপুর এলাকায় দুষ্কৃতীদের ছোঁড়া বোমায় জখম হন ৩ কংগ্রেস কর্মী। দুপুরে মালদা উত্তর লোকসভা কেন্দ্রে ভোট চলাকালীন চাঁচলের ধুমসাডাঙি এলাকার ২১৬ নম্বর বুথের বাইরে এলোপাতাড়ি বোমাবাজি ও গুলি চালানোর অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে। এই ঘটনার পর পুলিশ এলাকা থেকে বেশ কয়েকটি তাজা বোমা উদ্ধার করে। তবে হতাহতের খবর নেই।
এদিকে চাঁচলের কলিগ্রাম উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের ১৭৩ নম্বর বুথে শাসক দলের বিরুদ্ধে ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগ তোলে বিজেপি। গোলমালের ছবি তুলতে গিয়ে সাগর রায় নামে এক বিজেপি কর্মী আক্রান্ত হন বলে বিজেপি–‌র অভিযোগ। রতুয়া ১ ব্লকের মতিগঞ্জ এলাকার ১৫৫ ও ১৫৬ নম্বর বুথের সামনে ভোট দেওয়াকে কেন্দ্র করে বিজেপি–‌র সঙ্গে তৃণমূলের সঙ্ঘর্ষ বেধে যায়। তৃণমূলের অস্থায়ী কার্যালয়ে ভাঙচুর চালানোর অভিযোগ ওঠে বিজেপি–‌র বিরুদ্ধে। বিজেপি–‌র দাবি, তাদের কার্যালয়েও ভাঙচুর চালানো হয়েছে। সেখানে কেন্দ্রীয় বাহিনী পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। জেলাশাসক তথা নির্বাচন আধিকারিক কৌশিক ভট্টাচার্য জানিয়েছেন, ‘‌মোটের ওপর শান্তিতেই ভোট হয়েছে।’‌ ‌তৃণমূলের জেলা সভাপতি তথা মালদা দক্ষিণের প্রার্থী মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন,  ‘‌ভারত–‌বাংলাদেশ সীমান্ত এলাকায় কেন্দ্রীয় বাহিনী বুথের ভেতর গিয়ে ভোটারদের প্রভাবিত করেছে। এটা শুধু কালিয়াচকে নয়, বৈষ্ণবনগর, ইংরেজবাজার ও মানিকচক বিধানসভা কেন্দ্রেও হয়েছে। নির্বাচন কমিশনকে অভিযোগ জানানো হয়েছে। তবুও ভাল ভোট হয়েছে।’‌ বিজেপি–‌র জেলা সভাপতি সঞ্জিত মিশ্র বলেন, ‘‌দুটি লোকসভা কেন্দ্রেই বুথ দখল করে ছাপ্পা ভোট দিয়েছে কংগ্রেস, তৃণমূল।’‌ 
বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রে সন্ধে ৬টা পর্যন্ত ৮৪.‌৪ শতাংশ ভোট পড়েছে। সকাল থেকে বালুরঘাট–‌সহ জেলার নানা এলাকায় ইভিএম খারাপ থাকার অভিযোগ ওঠে। খবর পেয়েই জেলা প্রশাসন তৎপরতার সঙ্গে সেগুলি ঠিক করে ভোটগ্রহণ স্বাভাবিক করে। সকালে বালুরঘাট ব্লকের পরানপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বিজেপি–‌র তরফে ভোটার সহায়তা কেন্দ্র খুলে ভোটারদের প্রভাবিত করার চেষ্টা করা হচ্ছিল বলে অভিযোগ ওঠে। নজরে পড়ে বালুরঘাট লোকসভার তৃণমূল প্রার্থী অর্পিতা ঘোষের। তিনি প্রিসাইডিং অফিসারকে অভিযোগ জানান। এর পরেই সেটি সরিয়ে দেওয়া হয়। এদিন সকালে তপন থানার বজরাপুকুরে এক বিজেপি কর্মীকে মারধরের অভিযোগ ওঠে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। মন্টু রায় নামে ওই বিজেপি কর্মী তপন হাসপাতালে ভর্তি। দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা প্রেস ক্লাবের বিভিন্ন সদস্য এদিন প্রথম ইডি (‌ইলেকশন ডিউটি)‌ ভোট দেন। হরিরামপুর থানার উত্তর মুস্কিপুর ৩৮ নং বুথে ভুয়ো পোলিং এজেন্টকে ধরে ফেলে পুলিশ। দুপুরে বিজেপি ও তৃণমূলের কর্মীরা হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ে কুশমন্ডি বিধানসভার ৮৯ নং কুশমন্ডি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ও তপনের পশ্চিম বজরাপুকুর এলাকায়। 
অন্য দিকে, হরিরামপুর বিধানসভার শায়েস্তাবাদ, গাঙ্গুরিয়াতেও বিজেপি কর্মীদের সঙ্গে তৃণমূল কর্মীদের হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। যদিও সব ক্ষেত্রেই পুলিশ দ্রুত পরিস্থিতি 
স্বাভাবিক করে। বিকেলে কুশমন্ডির একটি বুথে ভোটগ্রহণ দেখতে যান বিজেপি প্রার্থী সুকান্ত মজুমদার ও তৃণমূল প্রার্থী অর্পিতা ঘোষ। দু’‌জনেই সৌজন্য বিনিময় করেন। ভোটের লড়াইয়ে থাকলেও এদিন ময়দানে দেখা যায়নি 
কংগ্রেস ও বামেদের।

জনপ্রিয়

Back To Top