‌আজকালের প্রতিবেদন: পাহাড়ে জুন মাস থেকে টানা ১০৪ দিনের আন্দোলনে মৃতদের পরিবার এবং আহতদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিল রাজ্য সরকার। তবে মৃত অথবা আহত ব্যক্তিদের, যাঁদের নাম পুলিসের খাতায় নেই অর্থাৎ যাঁদের বিরুদ্ধে অপরাধমূলক কাজকর্মের কোনও উল্লেখ নেই, তাঁরাই এই ক্ষতিপূরণ পাবেন। আজ মঙ্গলবার পিনটেল ভিলেজে সর্বদল বৈঠকে এ কথা জানিয়ে দেওয়া হবে। এই বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি নিজেই উপস্থিত থাকবেন। নবান্নে ১৬ অক্টোবর পাহাড় নিয়ে বৈঠকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার দাবি জানিয়েছিলেন জিটিএ প্রশাসনিক পর্ষদের চেয়ারম্যান বিনয় তামাং। তাঁর দাবির মান্যতা দিতেই রাজ্য সরকার এই সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে। নিয়ম অনুযায়ী, এ সব ক্ষেত্রে মৃতের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ বাবদ ২ লক্ষ টাকা দেওয়া হয় এবং আহতদের ক্ষেত্রে ৫০ থেকে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত দেওয়া হয়। তবে পাহাড়ের ক্ষতিপূরণ কী দেওয়া হবে তা ঠিক করবেন মুখ্যমন্ত্রী। যাঁদের বিরুদ্ধে পুলিস মামলা করেছে, তেমন মৃতই হোক বা আহত, কাউকেই ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে না। তবে স্বরাষ্ট্র দপ্তর সূত্রে খবর, পাহাড়ে এই দফার আন্দোলনের জেরে মৃত বা আহত ব্যক্তির তালিকায় তেমন নাম খুব কম। ক্ষতিপূরণের দাবি মানলেও পাহাড় জুড়ে বন্‌ধ চলার সময় সরকারি দপ্তর এবং জিটিএ–র কর্মীদের যে বেতন কেটে নেওয়া হয়েছিল তা ফিরিয়ে দেওয়ার কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। এমনকী যাঁদের বিরুদ্ধে মামলা রয়েছে, সেই মামলা তুলে নেওয়া হবে না বলেই নবান্ন সূত্রে খবর। আজ, ২১ নভেম্বর পিনটেল ভিলেজে বৈঠকে যোগ দেওয়ার জন্য মুখ্যমন্ত্রী সোমবারই শিলিগুড়ি পৌঁছেছেন। 
১৬ অক্টোবর নবান্নে পাহাড়ের সমস্ত রাজনৈতিক দলকে নিয়ে সর্বদল বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন, গত ৪ মাসে পাহাড়ে যাঁরা নিহত এবং আহত হয়েছেন তাঁদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার দাবিটি বিবেচনা করে দেখবে রাজ্য সরকার। দার্জিলিঙে স্থায়ীভাবে শান্তি ফিরিয়ে আনতে সমাধানসূত্র কী হবে, তা পাহাড়ের সব দলকে এক হয়েই বের করতে হবে। ২১ নভেম্বর পিনটেল ভিলেজে আলোচনার মূল বিষয়বস্তু হবে স্থায়ী সমাধান। এছাড়া জিটিএ–র দাবিগুলি বিবেচনা করে দেখা হবে। 
ওই বৈঠকের পর গোর্খা জনমুক্তি মোর্চা নেতা বিনয় তামাং বলেছিলেন, গত তিন মাস যাঁরা কাজ করেননি তাঁদের বেতন দেওয়া, মৃত ও আহতদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়া, অস্থায়ী কর্মীদের নিয়মিত করার দাবিগুলির ব্যাপারে রাজ্য সরকার দ্রুত ব্যবস্থা নেবে। কেন্দ্রের সঙ্গে ত্রিপাক্ষিক বৈঠকে বসার ব্যবস্থা, সিবিআইয়ে যে সব অভিযোগের তদন্ত চলছে তা প্রত্যাহার এবং বিভিন্ন আদালতে যে সব মামলা চলছে তা তুলে নেওয়ার দাবিও রয়েছে। ‌

বাগডোগরায় পৌঁছলেন মুখ্যমন্ত্রী। সঙ্গে মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস। সোমবার। ছবি: গিরিশ মজুমদার

জনপ্রিয়

Back To Top