শিলিগুড়ির তিনটি স্টেশনে ফলকে থাকবে বাংলা ভাষা, মাতৃভাষা দিবসে দাবি তুলল স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন 

আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ২১ ফেব্রুয়ারি। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। দিনভর নানা কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে শিলিগুড়িতে যথাযোগ্য মর্যাদার সঙ্গে দিনটি পালন করা হল। সকালে বাঘাযতীন পার্কে শহীদ বেদীতে মাল্যদান ও পুষ্পার্ঘ্য প্রদান করেন পুরসভার প্রশাসক অশোক ভট্টাচার্য, রাজ্যের পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেব সহ বিশিষ্ট জনেরা। দিনটির গুরুত্ব বোঝান ভাষাবিদরা। সঙ্গে ছিল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানেরও আয়োজন।
অন্যভাবে ভাষাদিবসের দিনটি পালন করল শিলিগুড়ির স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘‌এই প্রজন্ম।’‌ তাঁদের দাবি, শহরের তিনটি স্টেশন এনজেপি, শিলিগুড়ি টাউন এবং শিলিগুড়ি জংশনে সমস্ত ফলক এবং স্টেশনের নামের ফলকে বাংলা ভাষায় লেখা বাধ্যতামূলক করতে হবে। হিন্দি এবং ইংরেজিতে লেখার পাশাপাশি বাংলা অক্ষরেরও ব্যবহার করতে হবে। ত্রি–ভাষা নীতি অনুযায়ী রাজ্যের প্রধান ভাষায় লেখা বাধ্যতামূলক। অন্যান্য সমস্ত রাজ্যে এই নীতি চালু থাকলেও কোনও অজ্ঞাত কারণে বাংলায় তা নেই। উল্টে বেশ কিছু বছর হল বাংলায় লেখা মুছে দেওয়া হয়েছে রাজ্যের বিভিন্ন স্টেশনে। সেইসঙ্গে পাহাড়ের প্রতিটি টয় ট্রেন স্টেশনেও নেপালি ভাষায় লিখতে হবে বলে দাবি জানিয়েছে এই সংস্থাটি।
সংগঠনের পক্ষ থেকে গত ২৪ অক্টোবর উত্তর–পূর্ব সীমান্ত রেলের তৎকালীন জেনারেল ম্যানেজার সঞ্জীব রায়ের হাতে একটি স্মারকলিপি দেওয়া হয়েছিল। ওই সময় তিনি আশ্বস্ত করেছিলেন শীঘ্রই রেল এই ব্যাপারে পদক্ষেপ নেবে। কিন্তু তা বাস্তবায়িত হয়নি। তাই আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে সংগঠনের পক্ষ থেকে একই দাবি জানিয়ে পুনরায় স্মারকলিপি জমা দেওয়া হয় রেল কর্তৃপক্ষের কাছে। এনজেপির স্টেশন ম্যানেজার শশাঙ্ক শেখরের কাছে একই দাবি তুলে ধরা হয়। সংগঠনের দাবি, স্টেশন ম্যানেজার তাদের আশ্বস্ত করেছেন আগামী এক মাসের মধ্যে এই ব্যাপারে সমাধান সূত্র বের করে বাংলা হরফে লেখা হবে সমস্ত ফলক। সংগঠনের তরফে জানানো হয়েছে এক মাসের মধ্যে যদি দাবি মানা না হয়, তবে বৃহত্তর আন্দোলনে যাবেন তাঁরা।