ভোটের আগে শিলিগুড়ির দাপুটে বাম নেতা যোগ দিলেন বিজেপিতে 

আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ নির্বাচনের আগেই বাম দুর্গে ধস। বিজেপির কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়র হাত ধরে গেরুয়া শিবিরে যোগ দিলেন শিলিগুড়ির দাপুটে সিপিএম নেতা শঙ্কর ঘোষ। গতকালই দার্জিলিংয়ের বিজেপি সাংসদ রাজু বিস্তের সঙ্গে মাটিগাড়ার একটি বেসরকারি হাসপাতালে বৈঠক হয় দু’‌জনের। এরপরই আব্বাস সিদ্দিকির সঙ্গে বামেদের হাত মেলানোর বিরোধিতা করে সিপিএম থেকে অব্যাহতি চান শিলিগুড়ি পুরসভার প্রশাসকমণ্ডলীর সদস্য শঙ্কর। শুক্রবার বিজেপিতে তিনি যোগ দিলেন। যার ফলে শিলিগুড়ি কেন্দ্রে বামেদের জয় ছিনিয়ে আনতে বেশ বেগ পেতে হতে পারে বলে মত রাজনৈতিক মহলের।
গতকাল রাজু বিস্তের সঙ্গে বৈঠকের পর দলকে চিঠি দিয়ে একাধিক অভিযোগ করেছিলেন শঙ্কর। লিখেছিলেন, ‘‌সংখ্যাধিক্যের আড়ালে ভিন্নমতকে উপেক্ষা করা হচ্ছে৷ দলে বিতর্কের পরিসরের অভাব প্রকট হয়ে উঠছে। ভিন্নমত পোষণ করলেই দলীয় নেতৃত্বের বিরাগভাজন হতে হচ্ছে। দলের সঙ্গে নানা বিষয়ে মতানৈক্য রয়েছে আমার। দলের মধ্যে দমবন্ধ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। সেখান থেকে মুক্তি চাই।’‌ বিজেপিতে যোগ দেওয়ার আগেই অবশ্য শিলিগুড়ি পুরসভার প্রশাসকমণ্ডলীর পদ থেকেও ইস্তফা দিয়েছিলেন শঙ্কর ঘোষ।
রাজ্যে বিধানসভা ভোটের ঠিক মুখে অশোক ভট্টাচার্যের ‘‌ডান হাত’‌ তথা দলের নবীন প্রজন্মের নেতা বলে পরিচিত শঙ্কর ঘোষের এই দলত্যাগ বাম শিবিরে শোরগোল ফেলে দিয়েছে। বৃহস্পতিবারই মাটিগাড়ার হাসাপাতালে শঙ্কর ঘোষের অসুস্থ মা’‌কে দেখতে গিয়েছিলেন দার্জিলিংয়ের সাংসদ রাজু বিস্ত। তখন থেকেই শঙ্করের বিজেপিতে যোগদান যেন সময়ের অপেক্ষা হয়ে দাঁড়িয়েছিল। 
বৃহস্পতিবারই উত্তর দিনাজপুরে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন চোপড়া ব্লক কংগ্রেসের সভাপতি অশোক রায়। বস্তুত গত লোকসভা নির্বাচনে উত্তরবঙ্গ বিজেপিকে দু’‌হাত ঢেলে দিয়েছে। রাজ্যে পাওয়া ১৮ আসনের সিংহভাগটাই এসেছে উত্তরবঙ্গ থেকে। তাই নবান্ন দখলে সেই উত্তরবঙ্গকে বেশি করে পাখির চোখ করেছে গেরুয়া শিবির।