গিরিশ মজুমদার, শিলিগুড়ি, ৪ জানুয়ারি- ফাঁসিদেওয়ার প্রত্যন্ত গ্রাম মাধবভিটা। সেখানকার মহিলারা নতুন দিশা দেখাচ্ছে গোটা জেলাকে। সঙ্ঘবদ্ধ হয়ে মহিলারাই উৎপাদন করছেন সুগন্ধি নুনিয়া। যত্নের সেই চাষ সুনাম ছড়াচ্ছে দূরদূরান্তে। শুধু তাই নয়, ওই নুনিয়া এখন মিলছে অনলাইনেও। যে গ্রামের শ্রমজীবী মানুষ জানেনই না ইন্টারনেট বা অনলাইন আসলে খায় না মাথায় দেয়। সেই গ্রামের মহিলাদের শ্রম অনলাইনে ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে সেখান থেকেই কেনাবেচা শুরু হওয়ায় গোটা জেলায় উৎসাহ তৈরি হয়েছে। যে মহিলাদের পাশের পাড়ার লোক চেনেন না, তাঁদের পরিব্যাপ্তি এখন সীমানাহীন। এঁরা বড় কোনও খামার মালিক নন, বড় চাষিও নন। ফাঁসিদেওয়ার ঘোষপুকুর ছাড়িয়ে আরও ভেতরের গ্রাম মাধবভিটা। গ্রামের মহিলারা সংসারে হাল ধরতে দিনমজুরি করেন। কেউ রাজমিস্ত্রি আবার কেউ মাঠের কাজও করেন। অনেক চা–‌শ্রমিকও রয়েছেন এখানে। সেই গ্রামের রেখা, সীতামণি, আশ্রিতারা ওই অস্বাভাবিক ভাবনা থেকে এখন বিশ্বজয়ের স্বপ্ন দেখছেন। শুরুটা দল বেঁধেই করেছিলেন। স্বনির্ভর হওয়ার দল। মাধবভিটা গ্রামের পুরুষরা বাইরে কাজে যান। অনেকের জমি রয়েছে। সেখানে চাষাবাদ করেন। টানটান সংসারে বাড়ির মহিলারা পথ খোঁজার তাগিদে নাম লেখান স্বনির্ভর দলে। সীতামণি তিরকি, আশ্রিতা খালকে, ফতিমা টিগ্গা–‌ সহ ১৩ জন মিলে গড়ে তোলেন জাগৃতি মহিলা স্বনির্ভর দল। এখন ওই গ্রামে এক ডাকে জাগৃতিকে চেনে। মাশরুম চাষ করে একসময়ের সুনাম এখনও রয়েছে। এবার পা বাড়িয়েছেন নুনিয়া চাষে। কেউ বাড়ির পেছনে ২ কাঠা জমিতে ধান লাগিয়েছেন। কেউ মাঠে লাগিয়েছেন ৫ কাঠা জমিতে। শ্রী পদ্ধতিতে চাষ করে এই প্রথম তাঁরা দাস নুনিয়া ঘরে তুলেছেন। ফলনও বেশ ভাল হয়েছে। আর ধান থেকে চাল বের করতেই তার গন্ধ ছড়িয়েছে কলকাতা পর্যন্ত। সেখান থেকে সোসিও নামে সংস্থার পক্ষ থেকে চাল নিয়ে গেছে। কয়েক কুইন্টাল চাল অনলাইনে বিক্রি হয়েছে। গ্রাম থেকে ৬০ থেকে ৭০ টাকা কেজি দরে চাল বিক্রি হয়। অনলাইনে ১৫০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়েছে। এখনও কিছু অর্ডার রয়েছে। খোলা বাজারেও অনেক চাহিদা। যা উৎপাদন হয় তা প্রায় শেষের দিকে। এবার চাইছেন আরও বেশি পরিমাণ চাষ করতে। জাগৃতি মহিলা স্বনির্ভর দলের নেত্রী বলেন, আমাদের সঙ্গে অনেকে যোগাযোগ করেছেন। কয়েকটি সংস্থা আমাদের থেকে চাল কিনে নিয়ে অনলাইনে বিক্রি করতে চাইছে। তাই আমরা আরও বেশি জমিতে চাষ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। পরে নিজেরাই অনলাইনে ব্যবসা করা যায় কিনা ভাবব। চাইছি ফাঁসিদেওয়ার গ্রাম ছাড়িয়ে দূর দিগন্তেও নুনিয়ার গন্ধ ছড়াক।  

নুনিয়া চালের প্যাকেট হাতে মাধবভিটার মহিলারা। ছবি:‌ গিরিশ মজুমদার
 

জনপ্রিয়

Back To Top