অভিজিৎ চৌধুরি, মালদা, ১৩ আগস্ট- ‘‌কৃত্রিম সমুদ্র’‌ মালদার ভাটরা বিল কর্মসংস্থানের কেন্দ্র হয়ে উঠেছে। পুরাতন মালদা ব্লকের সাহাপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের আদিবাসী এলাকা হিসাবে পরিচিত ভাটরা গ্রামটি। সেখানে কয়েক হাজার একর অনুর্বর জমি বছরের অধিকাংশ সময় শুকনো অবস্থায় পড়ে থাকে। আর এই ভাটরা বিলের খানিকটা দূরেই রয়ে গিয়েছে টাঙন নদী। বর্ষার মরশুমে ওই নদীর জল ওই গোটা এলাকায় ঢুকে পড়ে। আর তখনই এই ভাটরা বিলটি বিশাল জলাশয়ে পরিণত হয়। যার এপ্রান্ত থেকে ওপ্রান্ত শুধু জল আর জল। এমনকী সেই জলে ঢেউ উঠতেও দেখা যাচ্ছে। অনেকটাই যেন সমুদ্রের আবহ।  বিলটি মানুষের কাছে ‘‌মিনি দীঘায়’‌ পরিণত হয়েছে। 
আর সেখানেই রাতারাতি গড়ে উঠেছে ফাস্টফুড, চা, পান, শিশুদের খেলনা–‌সহ যাবতীয় সরঞ্জামের দোকান। গড়ে উঠেছে বিভিন্ন যানবাহন রাখার স্ট্যান্ড। সব মিলিয়ে রোজগারের বিপুল বন্দোবস্ত। আর এই কাজে এগিয়ে এসেছেন ভাটরা গ্রামের মানুষ। ছুটির দিন তো রয়েছেই, এর বাইরে প্রায়দিনই ভাটরা গ্রামে সমুদ্র সৈকতের আনন্দ নিতে ছুটে যাচ্ছেন অনেকে। তাঁদের থেকেই হচ্ছে রোজগার। জেলার নানাপ্রান্ত থেকেই আসছেন অনেকে। সেলফি তোলার হুড়োহুড়ি পড়ে গেছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় এইসব ছবি ছড়িয়ে যাচ্ছে। বর্ষা পেরিয়ে গেলে এই দৃশ্য নাও দেখা যেতে পারে, এটা ভেবেই  ভিড় ক্রমশ বাড়ছে।  
কোনওরকম বিশৃঙ্খলা এড়াতে সংশ্লিষ্ট থানা থেকে বসেছে পুলিশ পিকেটও। ভাটরা গ্রামের বাসিন্দা নিমাই টুডু, রজনী বাস্কে, সুধীর মণ্ডল, ছোটু মণ্ডলদের বক্তব্য, বর্ষার মরশুমে ঘরে বসেই যথেষ্ট উপার্জন হয়ে যাচ্ছে। আর অন্য কোথাও যেতেই হচ্ছে না। পুরাতন মালদার বিধায়ক অর্জুন হালদার বলেন, ‘‌ভবিষ্যতে ওই এলাকায় পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তুলতে রাজ্য সরকারের কাছে অনুরোধ জানাব।’‌

 

বর্ষার জল জমে মিনি দিঘা। সেলফি তোলার হিড়িক। ছবি:‌ প্রতিবেদক

জনপ্রিয়

Back To Top