গিরিশ মজুমদার, শিলিগুড়ি: উত্তরবঙ্গ আমার দৃষ্টিতে, এখানকার মানুষ আমাকে টানে। এখন আর কেউ উত্তরবঙ্গকে বঞ্চিত বলতে পারবেন না। সোমবার শিলিগুড়িতে উত্তরবঙ্গ উৎসবের উদ্বোধনে এসে বললেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। উৎসবের মধ্য দিয়ে তিনি বেশ কিছু প্রকল্পের উদ্বোধন করেন এদিন। প্রকল্পগুলি রয়েছে উত্তরবঙ্গের প্রায় সব জেলাতেই। মুখ্যমন্ত্রীর হাতে উদ্বোধন হয়েছে শিলিগুড়ি সংলগ্ন কাওয়াখালিতে বিশ্ব বাংলা শিল্প হাটের। দার্জিলিং জেলার কয়েকটি রাস্তার কাজও রয়েছে উদ্বোধনের তালিকায়। উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দপ্তর এবং শিলিগুড়ি জলপাইগুড়ি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের বেশ কিছু প্রকল্প রয়েছে। তার মধ্যে মুখ্যমন্ত্রী এদিন উদ্বোধন করেন জলপাইগুড়ি রাজবাড়ি দিঘির ভিক্টোরিয়া গ্যাজিবো, দিঘি এলাকায় বৈদ্যুতিক আলোকসজ্জা, হিন্দি উচ্চবিদ্যালয়ের হস্টেল, মাটিয়ালির যুব আবাস, ধূপগুড়িতে গুদামঘর, পলিটেকনিক কলেজে ছাত্রী হস্টেল। এ ছাড়া জেলার একাধিক পানীয় জল প্রকল্পের উদ্বোধন করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। আলিপুরদুয়ার জেলার বক্সাফোর্টে এবং ফালাকাটায় বংশীধরপুরে জল সরবরাহ প্রকল্পের উদ্বোধন হয় এদিন। কোচবিহারে ৫১ লক্ষ টাকায় খলসিমারিতে ঠাকুর পঞ্চানন বর্মা মেমোরিয়াল মিউজিয়াম এবং গবেষণা কেন্দ্র নতুন করে সাজানো হয়েছে, ২ কোটি টাকায় নয়ারহাটের গোবরাছড়ায় সেতু নির্মাণ করা হয়েছে। হলদিবাড়ি, নয়ারহাট এবং মাথাভাঙায় রয়েছে ভবন ও কয়েকটি রাস্তা। উত্তর দিনাজপুরে গোয়ালপোখরে কালুভিটা এবং চাঘরিয়াতে রাস্তা নির্মাণ করা হয়েছে। ইটাহারেও রয়েছে কয়েকটি রাস্তা। এদিন, মুখ্যমন্ত্রী এই প্রকল্প উদ্বোধনের পাশাপাশি উত্তরবঙ্গ জুড়ে ৪৬টি প্রকল্পের শিলান্যাস করেন। উদ্বোধন শেষে তিনি বলেন, উত্তরবঙ্গ আমার সুন্দর জায়গা। এখানে একদিকে পাহাড়, একদিকে নদী, একদিকে জঙ্গল। আরেক দিকে কী সুন্দর মানুষ। বিভিন্ন ভাষাভাষী মানুষের বসবাস। সবার মিশ্রণে উত্তরবঙ্গ। এখন আর কিন্তু কেউ বঞ্চিত বলতে পারবেন না। উত্তরবঙ্গে সবচেয়ে বেশি যদি কেউ আসে, আমি আসি। সুতরাং এটা মাথায় রাখবেন, উত্তরবঙ্গ আমার দৃষ্টিতে আছে। আগে উত্তরবঙ্গকে কেউ হয়তো গুরুত্ব দিত না। সেভাবে আসতও না। এখন এমন কোনও মাস নেই যে, আমি উত্তরবঙ্গে পদার্পণ করিনি। আমি উত্তরবঙ্গের মানুষের পাশে সব সময় আছি। তাই উত্তরবঙ্গের মানুষ যত এগিয়ে যাবে তত ভাল। এখানে রাজবংশী ও কামতাপুরি আকাদেমি করা হয়েছে। রাজবংশী ভাষাকে স্বীকৃতি দিয়েছি। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, অনেক কাজ করেছি। এশিয়ান হাইওয়েতে জুড়ছে নেপাল, ভুটান, বাংলাদেশ। কলকাতা থেকে উত্তরবঙ্গের প্যারালাল রাস্তা হচ্ছে। পাহাড়–সমতলে অনেক কাজ হচ্ছে। কাজের গতি থেমে থাকে না। উত্তরবঙ্গের মানুষ ভাল থাকলে তবেই বাংলা ভাল থাকবে। ‌‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top