সঞ্জয় বিশ্বাস, অলক সরকার: অবশেষে মোর্চা থেকে বিমল গুরুংদের বিতাড়িত করার প্রক্রিয়া শুরু হল। বিমল গুরুং, রোশন গিরি, আশা গুরুং, সরোজ থাপা–সহ ১৪ জন মোর্চা নেতাকে দল থেকে ৬ মাসের জন্য সাসপেন্ড করা হল। মোর্চা সুপ্রিমোর পদে বসলেন বিনয় তামাং। রোশন গিরির জায়গায় নিয়ে আসা হল অনীত থাপাকে। শুরু হল পাহাড় রাজনীতির নতুন অধ্যায়। অবসান হল গুরুং–জমানার। সোমবার দার্জিলিং ঘুম এলাকার স্ট্যালিন রিসর্টে মোর্চার কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠক বসে। কেন্দ্রীয় কমিটির ৯৩ জন নেতার মধ্যে হাজির ছিলেন ৩৭ জন। বিনয় তামাং জানান, প্রায় ৪৩ শতাংশ কেন্দ্রীয় নেতার উপস্থিতিতে এদিন গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। যাঁদের সাসপেন্ড করা হয়েছে তাঁরা হলেন বিমল গুরুং, রোশন গিরি, আশা গুরুং, সরোজ থাপা, সরন দেওয়ান, সাবিত্রী রাই, প্রকাশ গুরুং, প্রিয়বর্ধন রাই, সঞ্জীব লামা, বারুদ থাপা, ভাস্কর রাই, সঞ্জিত সুবেদি, অনমল প্রসাদ ও প্রণাম লামা। দীর্ঘ সময় ধরে সংগঠনের কোনও কাজ না করা, পাহাড় ছেড়ে বাইরে পড়ে থাকা এবং সংগঠন বিরোধী নানা কার্যকলাপের জন্য এঁদের প্রাথমিকভাবে ৬ মাসের জন্য সাসপেন্ড করা হয়েছে। মোর্চার শীর্ষস্থানীয় পদগুলি শূন্য হয়ে পড়ায় কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্যদের মধ্যে থেকে অলোককান্ত মণিথুলুং প্রস্তাব দেন, বিমল গুরুংয়ের জায়গায় বিনয় তামাংকে দায়িত্ব দেওয়া হোক। সম্পাদক করা হোক অনীত থাপাকে। প্রস্তাব আসতেই বৈঠকে সর্বসম্মতিক্রমে দু’‌জনকে মনোনীত করা হয়। খুব দ্রুত নির্বাচন কমিশন–সহ সর্বস্তরে মোর্চার তরফে চিঠি পাঠিয়ে নতুন কমিটির কথা জানানো হবে। অন্যদিকে, মঙ্গলবার শিলিগুড়ির দাগাপুরে পিন্টেল ভিলেজে পাহাড় নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী যে সর্বদল বৈঠক ডেকেছেন, সেখানে মোর্চা–সুপ্রিমো হিসেবেই যোগ দেবেন বিনয় তামাং। ওই বৈঠকে মোর্চার প্রতিনিধি হিসেবে যোগ দেবেন বিনয় তামাং, অনীত থাপা, বিধায়ক রোহিত শর্মা, বিধায়ক অমর সিং রাই, সন্তবীর সুব্বা এবং সিরিং দাহাল–সহ ৬ জন। বিনয় ঘোষণা করেন, আগামী ডিসেম্বরেই সুকনায় বড় জনসভা করা হবে। গোর্খাল্যান্ড সঙ্ঘর্ষ সমন্বয় সমিতি ২৬ নভেম্বর গোর্খাল্যান্ড অভিযান করতে দিল্লি যাচ্ছে। মোর্চার তরফে সেই অভিযানে ৩ জন প্রতিনিধি পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে। বিমল গুরুং পাহাড়ছাড়া হওয়ার পর থেকেই শুরু হয়েছিল জল্পনা। আদৌ তিনি ক্ষমতায় ফিরতে পারবেন কি না। এর পর একের পর এক বিস্ফোরণ, সম্পত্তি ধ্বংসের ঘটনায় যখন গুরুংদের বিরুদ্ধে দেশদ্রোহিতার মামলা রুজু হয়, এর পর তিনি পাহাড়েই ফিরতে পারবেন কি না তা নিয়ে প্রশ্নচিহ্ন তৈরি হয়। এই সময়েই মোর্চার মধ্যে থেকে নতুন নেতা হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন বিনয় তামাং। তার পরেই নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল গুরুং–জামানার অবসানের। এদিন সেটাই খাতায়–কলমে হল। এর ফলে পাহাড়ের রাজনীতিতেও ব্যাপক পরিবর্তন আসে। বিমল গুরুংকে মোর্চা থেকে সরানোর প্রক্রিয়া চলছিল অনেক দিন ধরেই। অবশেষে তাতেই চূড়ান্ত সিলমোহর পড়ল।‌‌

সাংবাদিকদের সম্মেলনে বিনয় তামাং। দার্জিলিঙে, সোমবার। ছবি: সঞ্জয় বিশ্বাস

জনপ্রিয়

Back To Top