পঙ্কজ সরকার, মালদা, ১৯ ফেব্রুয়ারি- প্রাথমিক স্কুলে নিয়োগের দাবিতে অনশনে বসলেন চাকরিপ্রার্থীরা। প্রশাসনের কাছে চূড়ান্ত নিয়োগের ব্যাপারে নিশ্চিত আশ্বাস না পাওয়া পর্যন্ত আমরণ অনশন চালিয়ে যাবেন বলে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ তাঁরা। রবিবার সন্ধে থেকে গান্ধীমূর্তির সামনে মোমবাতি জ্বালিয়ে তাঁরা ধর্নায় বসেন মালদা প্রশাসনিক ভবনের সামনে। তাঁদের ক্ষোভ, অন্য জেলায় একই বিজ্ঞপ্তির নিয়োগ হয়ে গেলেও, মালদাতে এখনও হয়নি। উচ্চ আদালত ১৪ দিনের মধ্যে নিয়োগের নির্দেশ দিলেও, চাকরিপ্রার্থীদের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশও করা হয়নি। 
চাকরিপ্রার্থীরা জানাচ্ছেন, ২০০৯ সালে ১৩৩১টি শূন্যপদের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়। পরের বছর লিখিত পরীক্ষাও হয়। কিন্তু তার ফলাফল প্রকাশিত হয়নি। ২০১৪ সালে ফের পরীক্ষায় বসতে হয় চাকরিপ্রার্থীদের। পরের বছর লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়। তার মৌখিক পরীক্ষাও হয়ে যায়। চূড়ান্ত প্যানেল আর প্রকাশিত হয়নি। উচ্চ আদালত পর্যন্ত গড়ায় বিষয়টি। এক চাকরিপ্রার্থী মহম্মদ আকবর শেখ বলেন, ‘‌গত বছরের ৭ সেপ্টেম্বর ১৪ দিনের মধ্যে চূড়ান্ত প্যানেল–‌‌সহ নিয়োগের নির্দেশ দেয় উচ্চ আদালত। কোনও অজ্ঞাত কারণে আমাদের বিষয়টি ঝুলিয়ে রাখা হয়। পাশাপাশি অন্য জেলাগুলি কবেই চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করে নিয়োগ সম্পন্ন করে ফেলে। অথচ মালদায় তা করা হয়নি। আমরা বাববার দরবার করেও কোনও সুরাহা পাইনি। তাই আমরা অনশনের সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’‌ 
চাকরিপ্রার্থীদের দাবি, ৮ বছর আগেকার বিজ্ঞপ্তি, অনেকেই তখন পরীক্ষায় বসেছিলেন। পরে টেট–‌‌এর মাধ্যমে প্রাথমিকে নিযুক্ত হয়েছেন। তখনকার অনেকেই টেট পাশ করে চাকরি করছেন। পরীক্ষায় পাশ করেছিলেন ৪ হাজারের কাছাকাছি। এখন সংখ্যাটি ৫০০–‌‌৬০০ হবে। ফলে ১৩৩১টি শূন্যপদের অনেকটাই এখনও শূন্যই থেকে যাবে। তবু আমাদের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করে নিয়োগ করা হচ্ছে না। রবিবার রাত থেকে অনশনের ফলে অসুস্থ হয়ে পড়েন আকবর। অনশন মঞ্চ থেকেই তিনি জানান, ‘‌অবিলম্ব ২০০৯–‌‌১০ সালের প্রাথমিক চাকরিপ্রার্থীদের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ ও নিয়োগের ব্যাপারে নিশ্চিত করতে হবে জেলা প্রশাসনকে। যতদিন না করবে, আমরাও অনশন চালিয়ে যাব। বেকারত্বের জ্বালায়, অসহায় অবস্থায় দিন কাটাচ্ছি আমরা, অথচ এতটুকু সহানুভূতি আমরা কোথাও পাচ্ছি না।’‌‌

অনশনরত চাকরিপ্রার্থীরা। সোমবার। ছবি:‌ পঙ্কজ সরকার‌
 

জনপ্রিয়

Back To Top