আবু হায়াত বিশ্বাস, দিল্লি: বিরোধী দলগুলি নির্বাচন কমিশনের কাছে দাবি করেছিল, লোকসভা নির্বাচনের ফল ঘোষণার আগে ইভিএমের ফলাফলের সঙ্গে অন্তত ৫০ শতাংশ ভিভিপ্যাট মিলিয়ে দেখতে হবে। সেই দাবিতেই সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছে ২১টি বিরোধী রাজনৈতিক দল। শুক্রবার সেই আবেদনের প্রেক্ষিতে সুপ্রিম কোর্ট নির্বাচন কমিশনকে নোটিস পাঠাল। প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ, বিচারপতি দীপক গুপ্ত ও বিচারপতি সঞ্জীব খান্নার বেঞ্চে মামলাটির শুনানি হয়। দেশের প্রতিটি বুথে ব্যবহৃত ইভিএম ও ভিভিপ্যাট যন্ত্রগুলির ওপর ভোটাররা ভরসা রাখতে পারেন কি না, সে বিষয়েও নির্বাচন কমিশনের মত জানতে চেয়েছে শীর্ষ আদালত। একইসঙ্গে মামলার পরবর্তী শুনানির দিন নির্বাচন কমিশনের একজন আধিকারিককে আদালতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে বেঞ্চ। ২৫ মার্চ এই মামলার পরবর্তী শুনানি। 
 বিরোধীরা দীর্ঘদিন ধরে দাবি করছে, ইভিএমে ভোটের ফলে কারচুপি করা যায়। ইভিএম ‘হ্যাক’ করাও সম্ভব। সেই জন্য ইভিএমের পরিবর্তে ব্যালটে ভোটের দাবিও জানিয়েছিল তারা। তাদের বক্তব্য, ইভিএমের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে মানুষের মনে প্রশ্ন রয়েছে। এই প্রশ্ন দূর করতে ৫০ শতাংশ ভিভিপ্যাট যাচাইয়ের প্রয়োজন বলে মনে করে তারা। বিষয়টি নিয়ে একাধিকবার নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে বিরোধীদের প্রতিনিধিদল। যদিও নির্বাচন কমিশন বিরোধীদের এই দাবি মানতে নারাজ। তবে কত শতাংশ ভিভিপ্যাট যাচাই করা দরকার, তা নিয়ে সংখ্যাতত্ত্ববিদদের মতামত জানতে চেয়েছে কমিশন। এবারই প্রথম লোকসভা নির্বাচনে সব বুথে ইভিএমের সঙ্গে ভিভিপ্যাট থাকবে বলে জানিয়েছে কমিশন। এ জন্য ২০১৯–‌‌‌এর লোকসভা ও চার রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচনে ১৭ লক্ষ ৪০ হাজার ভিভিপ্যাট ব্যবহার করা হবে। আদালত এদিন জানিয়ে দিয়েছে, ইভিএমগুলি সুরক্ষিত কী না পরীক্ষা করে দেখতে হবে। ‌

জনপ্রিয়

Back To Top