আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ রাজস্থান কংগ্রেসে কোনও চিড় ধরেনি। রবিবার সন্ধেবেলা জোর গলায় বললেন কংগ্রেসের বিধায়করা। তাঁদের মধ্যে রয়েছেন বিধায়ক রাহুল ভোরা। শনিবার তিন জন কংগ্রেস বিধায়ক শচীন পাইলটের সঙ্গে দিল্লি গেছিলেন। তাঁদের মধ্যেই এক জন রাহুলও। এদিন সাংবাদিক সম্মেলন করে তিনি জানালেন, ‘‌কংগ্রেস ঐক্যবদ্ধ রয়েছে‌।’‌
প্রশ্ন, তাহলে কেন দিল্লি গেছিলেন তিনি?‌ জবাব ভোরা বললেন, ব্যক্তিগত কাজেই দিল্লি গেছিলেন। বাকি দু’‌জন বিধায়ক কেন গেছিলেন, তিনি জানেন না। তাঁর কথায়, ‘‌আমরা প্রকৃত কংগ্রেস–সৈনিক’‌। অথচ সূত্র বলছিল, বিজেপি–র সঙ্গে কথাবার্তা চালাতেই দিল্লি গেছেন শচীন পাইলট। সঙ্গে তাঁর তিন অনুগামী বিধায়ক। মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলটের সঙ্গে মনোমালিন্য বেড়ে গেছে তাঁর। তাই সরকার ভাঙতে উঠেপড়ে লেগেছেন, ঠিক যেমনটা মধ্যপ্রদেশে করেছেন জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া। এও খবর ছিল, যে ১২ জন বিধায়ক শচীনের পাশে রয়েছেন। তাঁর নির্দেশে দল ছাড়তে পারেন ওই বিধায়করা। যদিও শচীন এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। রীতিমতো বিরক্তিও প্রকাশ করেছেন। 
আর বিজেপি?‌ তারা এখনও এই নিয়ে মুখ খোলেনি। শোনা গেছিল, মধ্যপ্রদেশের মতো রাজস্থানে গদি পেতে ইতিমধ্যেই ঘোড়া কেনাবেচা শুরু করে দিয়েছে বিজেপি। মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলটও বারবার আঙুল তুলেছেন। তবে বিজেপি এসব অভিযোগও অস্বীকার করেছে। টুইটারে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী গজেন্দ্র শেখাওয়াত জানিয়েছেন, ‘‌রাজস্থানে বিধায়ক কেনাবেচা সবই গল্প। ছবির চিত্রনাট্যকার, প্রযোজক, পরিচালক একজনই। নিজের দলের সভাপতির সঙ্গে মনকষাকষি মেটাতে চায়।’‌ 

জনপ্রিয়

Back To Top