সংবাদ সংস্থা, ওয়াশিংটন: এ দেশের পাঁচ কোটিরও বেশি মানুষের ক্ষমতা নেই হ্যান্ড স্যানিটাইজার কেনার। যার ফলে ভারতে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়ে গেছে বহুগুণ। সমীক্ষায় জানিয়েছেন ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটির গবেষকরা। বলা হয়েছে, বিশ্বের নিম্ন এবং মধ্যম আয়ের দেশগুলির প্রায় দু’‌কোটি মানুষ বেঁচে থাকেন সাবান এবং শুদ্ধ জল ছাড়াই। যা গোটা দুনিয়ার মোট জনসংখ্যার এক চতুর্থাংশ। এই সমস্যাটিই ধনী দেশগুলির তুলনায় ওই দেশগুলিতে করোনা সংক্রমণের হার বাড়িয়ে দিচ্ছে বেশ কয়েকগুণ। 
গবেষক দলের অন্যতম অধ্যাপক ব্রউয়ারের আক্ষেপ, সাবান এবং হ্যান্ড স্যানিটাইজার কোভিড–‌১৯–এর মতো ভাইরাস প্রতিরোধের অন্যতম হাতিয়ার। কিন্তু দুঃখের বিষয় হল, ওই দেশগুলিতে হ্যান্ডওয়াশ এবং স্যানিটাইজারকে স্বাস্থ্য পরিষেবার অন্যতম উপাদান হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। মোট ৪৬টি দেশের ওপর করা এই সমীক্ষায় দেখা গেছে, দেশগুলির অর্ধেকেরও বেশি মানুষের পরিষ্কার জল এবং সাবানের অভাব রয়েছে। এর মধ্যে  ভারত, পাকিস্তান, চীন, বাংলাদেশ, নাইজেরিয়া, ইথিওপিয়া, কঙ্গো এবং ইন্দোনেশিয়ার পাঁচ কোটি করে মানুষের রোজনামচায় হাতধোয়া বিষয়টি জায়গা পায় না। 
ব্রউয়ারের মতে, কোভিড–‌১৯ থেকে বাঁচার জন্য যত তাড়াতাড়ি সম্ভব হ্যান্ড সানিটাইজার ব্যবহারের বিষয়টির ওপর গুরুত্ব দিতে হবে। কারণ, বিশ্বে বছরে সাত লক্ষ মানুষের মৃত্যু হয় শুধুমাত্র ঠিকমতো হাত পরিষ্কার না করার জন্য। তবে আশার কথা, গোটা বিশ্বের ২৫ শতাংশ মানুষের স্বাস্থ্যকর পরিচ্ছন্নতার অভাব থাকা সত্ত্বেও ১৯৯০ সালের তুলনায় ২০১৯–এর ছবিটা অনেকটাই ভাল। সৌদি আরব, মরক্কো, নেপাল এবং তানজানিয়ার মতো দেশগুলি স্বাস্থ্য পরিষেবার ক্ষেত্রে পরিচ্ছন্নতায় উল্লেখযোগ্য উন্নতি করেছে। যদিও এই গবেষণায় বাসস্থান, বাজার, স্কুল, কলেজ,  কর্মক্ষেত্র বা জনবহুল জায়গার পরিচ্ছন্নতার বিষয়গুলি অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। ‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top