সম্রাট মুখোপাধ্যায়: সোনিয়া গান্ধী ও রাহুল গান্ধীকে স্পষ্টভাবে হেয় করার চেষ্টা করা হয়েছে ‘‌দ্য অ্যাক্সিডেন্টাল প্রাইম মিনিস্টার’ ছবিতে। শুক্রবারই মুক্তি পেল প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংকে নিয়ে তৈরি এই ছবি, যেখানে মনমোহনের চরিত্রে অভিনয় করেছেন অনুপম খের। পরিচালক বিজয় রত্নাকর গুট্টে পরিষ্কারই জানিয়ে দিয়েছেন মনমোহন ভাল। কংগ্রেস নিয়েও আপত্তি করার কিছু নেই। খারাপ শুধু একটি পরিবার। গান্ধী-‌নেহরু পরিবার। ছবিতে বলা হয়েছে ২০০৪ আর ২০০৯, এই দুই দফায় প্রধানমন্ত্রী হয়েও ড.‌ মনমোহন সিং যে স্বাধীন মতো দেশ চালাতে পারেননি, তার জন্যে দায়ী প্রত্যক্ষভাবেই তৎকালীন কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী এবং তাঁর পুত্র রাহুল গান্ধী। স্বাভাবিকভাবেই শুক্রবার মুক্তি পেয়ে এই ছবি বিতর্কের ঝড় তুলেছে সর্বত্র। যার ভেতর থাকা কিছু প্রশ্নকে উড়িয়েও দেওয়া যাচ্ছে না।
এই ছবি সঞ্জয় বারুর লেখা একই নামের বই ‘‌দ্য অ্যাক্সিডেন্টাল প্রাইম মিনিস্টার’‌ অবলম্বনে। ছবিটি ডকু-‌ফিচার ধাঁচে তৈরি। ছবিতে ব্যবহার করা হয়েছে যথেচ্ছ নিউজ ফুটেজ যার অধিকাংশই আবার অভিনেতাদের অভিনয় করিয়ে নিজের মতো করে বানিয়ে নেওয়া ফুটেজ। ছবিতে দেখানো হয়েছে, যে দু’‌বার মনমোহনকে প্রধানমন্ত্রী করা হয়েছে তা অস্বস্তিকর পরিস্থিতিতে গান্ধী পরিবারকে আড়াল করতে। ছবির প্রথমেই দেখানো হয়েছে সোনিয়া গান্ধীর প্রধানমন্ত্রিত্বে প্রথম আপত্তি তুলছেন রাহুল গান্ধী। কারণ, তাঁর স্মৃতিতে আছে ইন্দিরা গান্ধী ও রাজীব গান্ধীর হত্যার ঘটনা। তাই বলির পাঁঠা হিসেবে মনমোহন সিংকে বেছে নেওয়া। সব মিলিয়ে এই ছবি যে গান্ধী পরিবারের প্রতি আক্রমণ শানানোর লক্ষ্যেই তৈরি, তা কোথাও গোপন থাকেনি। এক চরিত্রের সংলাপের মধ্যে দিয়ে বলা হয়েছে, ‘‌মহাভারতে ছিল দুটি পরিবার। এখনকার ভারতে তো একটাই পরিবার।’‌ আবার ছবির কয়েকটি জায়গায় মনমোহন সিং-‌এর স্ত্রী ও মেয়ের সংলাপে বলা হয়েছে, মনমোহন সিং-‌কে উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে ব্যাবহার করছেন সোনিয়া এবং রাহুল। তাঁকে বারবার কোণঠাসা করা হয়েছে। আর তার ফলেই নির্বাচনে ভরাডুবি হয় কংগ্রেসের। ছবিতে প্রণব মুখার্জির চরিত্রটি করেছেন কলকাতার অভিনেতা প্রদীপ চক্রবর্তী। কিন্তু এই ছবিতে তাঁর নামও করা হয়নি। চরিত্রটির উপস্থিতিও মিনিট দেড়েকের।‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top