আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ অবশেষে মুক্তি দেওয়া হচ্ছে শাহ ফয়জলকে। প্রাক্তন আমলা তথা রাজনীতিক। কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা রদের বিরুদ্ধে সবথেকে বেশি সোচ্চার ছিলেন তিনি। গত আগস্টে জনসুরক্ষা আইনে আটক করা হয়েছিল তাঁকে। এবার সেই ধারায় অভিযোগই তুলে নেওয়া হচ্ছে।   
আগস্টে জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার করে কেন্দ্র। ওই সময়ই রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি, ওমর আবদুল্লা, ফারুক আবদুল্লা সহ বহু বিশিষ্ট নেতাকে আটক করা হয়। সেই তালিকায় ছিলেন ২০১০ সালে আইএএস হওয়ার পরীক্ষায় শীর্ষ স্থান অধিকার করা শাহ ফয়জলও। পরে তাঁদের জনসুরক্ষা আইনে আটক করা হয়। এই কঠোর আইনে বিনা বিচারেই কাউকে তিন মাস পর্যন্ত আটক করে রাখা যায়। আটকে রাখার মেয়াদ বাড়ানোও যায়। 
মার্চে ওমর এবং ফারুক আবদুল্লাকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। মেহবুবা মুফতিকে বাড়িতে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। তবে সরকারিভাবে মুক্তি দেওয়া হয়নি। এবার ছাড়া পাচ্ছেন শাহ ফয়জল। ১৪ আগস্ট দিল্লি বিমানবন্দর থেকে আটক করা হয় শাহ ফয়জলকে। অভিযোগ, বিমানবন্দরেই লোকজনকে উস্কানি দিচ্ছিলেন। তিনি আমেরিকায় যাচ্ছিলেন। আইবি (‌গোয়েন্দা বিভাগ)‌ তাঁর বিরুদ্ধে লুকআউট সার্কুলার জারি করে। এই সার্কুলারে তাঁর বিদেশ যাত্রা বন্ধ করা হয়। 
ফয়জল জানান, তিনি আমেরিকায় পড়াশোনা শেষ করার জন্য যাচ্ছিলেন। কেন্দ্রের তরফে প্রশ্ন করা হয়, ট্যুরিস্ট ভিসায় কেন আমেরিকায় যাচ্ছেন তিনি। পেশায় চিকিৎসক ফয়জল গত জানুয়ারিতে আমলার পদ থেকে ইস্তফা দেন। অভিযোগ করেন, কাশ্মীরে ‘‌বিনা প্ররোচনায়’‌ খুন চলছে। এর পর রাজনীতিতে যোগ দেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেন তিনি। 

জনপ্রিয়

Back To Top