‌সংবাদ সংস্থা, ম্যানিলা: ‘প্রতিরোধ কখনও কখনও আর পছন্দ–অপছন্দের বিষয় থাকে না। ‌সব যুদ্ধও জেতার জন্য লড়া হয় না। কখনও স্রেফ এটা জানান দিতেও, যে যুদ্ধক্ষেত্রে কেউ একজন লড়ে যাচ্ছে। আমি সেই সব লড়াকু সাংবাদিকদের হয়ে এই পুরস্কার নিচ্ছি।’‌ সোমবার ফিলিপিনসের রাজধানী ম্যানিলায় নির্ভীক সাংবাদিকতার স্বীকৃতি হিসেবে ম্যাগসাইসাই পুরস্কার নেওয়ার সময় রবীশ কুমারের এই এজাহার এখন বিপ্লবী ইস্তাহারের মতোই সারা বিশ্বে ঘুরে বেড়াচ্ছে। সরকার বা রাষ্ট্রের বিরোধিতা করার কারণে যে সাংবাদিকদের চাকরি যায়, সামাজিক হেনস্থার শিকার হতে হয়, এমনকী জীবন বিপন্ন হয়, তঁাদের কথা বলেছেন রবীশ। ৩৭০ ধারা বিলোপের পর অবরুদ্ধ কাশ্মীরের প্রসঙ্গ ভাষণে এনেছেন। মনে করিয়ে দিয়েছেন, বিরোধী সাংবাদিকতার সুর গণতন্ত্রে কত জরুরি এবং ভারতে কীভাবে তা অগ্রাহ্য করা হচ্ছে, সেই কথা। বলেছেন, ‘‌ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এখন সঙ্কটে এবং সেই সঙ্কট আকস্মিক, বা ঘটনাচক্রে নয়। বরং খুব পরিকল্পিত এবং সংগঠিতভাবে এই সঙ্কট তৈরি করা হচ্ছে। ফলে সাংবাদিকতা ভারতে এখন এক একক লড়াই। এই সঙ্কটের কথা বলা যে জন্য আরও বেশি জরুরি। কাজেই আজ আমি এই পুরস্কারপ্রাপ্তির জন্য ব্যক্তিগতভাবে যতটা খুশি, নিজের দেশে আমার পেশার সঙ্কটের জন্য তটাই দুঃখিত।’‌ এ বছরের ম্যাগসাইসাই পুরস্কারের সহ–প্রাপক, মায়ানমার, থাইল্যান্ড, ফিলিপিনস এবং দক্ষিণ কোরিয়ার আরও চার সাংবাদিক, যাঁরা প্রত্যেকে নিজেদের দেশে প্রতিকূলতার মুখে কাজ করে চলেছেন।‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top