সংবাদ সংস্থা, দিল্লি: হায়দরাবাদের তরুণী পশু–‌চিকিৎসকের গণধর্ষণ ও নৃশংস খুন। তার ২৪ ঘণ্টার মাথায় হায়দরাবাদের শাদনগরের আরও এক মহিলার জ্বলন্ত দেহ উদ্ধারের পর রাজস্থান–‌সহ দেশের নানা প্রান্তে মহিলা–‌নির্যাতন অব্যাহত। পুরী, কালবুর্গি, বক্সার, আজমগড়— এ যেন মহামারী!‌
সাম্প্রতিকতম গণধর্ষণের ঘটনাটি ঘটেছে দেবতীর্থ পুরীতে। অভিযুক্ত এক প্রাক্তন পুলিশ কনস্টেবল–‌সহ চারজন। ইতিমধ্যেই প্রাক্তন কনস্টেবলকে গ্রেপ্তার করেছে ওডিশা পুলিশ। সোমবার বিকেলে নির্যাতিতা কুম্ভাপাড়া থানায় অভিযোগ করার পর ঘটনা প্রকাশ্যে আসে। নির্যাতিতা জানান, নিমাপাড়া টার্মিনালে বাসের অপেক্ষায় থাকাকালীন তঁার সামনে একটি গাড়ি এসে দঁাড়ায়। চালক ও সওয়ারিরা নিজেদের পুলিশ পরিচয় দিয়ে তরুণীকে গন্তব্যে নামিয়ে দেওয়ার কথা বলেন। তরুণীর কথায়, ‘‌ওদের গাড়িতে উঠতে চাইনি। তবু জোর করে ওরা আমাকে গাড়িতে তুলে নিয়ে যায়।’‌
গাড়ি থামে ঝড়েশ্বরী মন্দিরের কাছে একটি সরকারি আবাসনে। সেখানেই তঁাকে পালা করে দেড় ঘণ্টা ধরে ধর্ষণ করে দুই ‘‌নকল পুলিশ’‌। বাকি দু’‌জনকে দরজার বাইরে পাহারায় দঁাড় 
করিয়ে রাখে।
এর মধ্যেই নির্যাতিতা এক অভিযুক্তের মানিব্যাগ নিয়ে নেন। তার থেকে প্রাক্তন পুলিশকর্মীর পরিচয়পত্র মেলে। তার নাম জিতেন্দ্র শেঠি। পুলিশের হাতে ওই পরিচয়পত্র তুলে দেওয়ায় কাজ আরও সহজ হয়ে যায়। সোমবার বিকেলে  তরুণীর অভিযোগের পর রাতেই মূল অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। অন্যরাও আটক হয়েছে। নির্যাতিতার মেডিক্যাল টেস্ট হয়েছে পুরী হাসপাতালে। তাতে ধর্ষণের প্রমাণ মিলেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।‌‌
সোমবার কর্ণাটকের কালবু্র্গির সুলেপেটে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। এখানে বিকারগ্রস্তদের লালসার শিকার হয়েছে ৯ বছরের এক বালিকা। গণধর্ষণের পর মেয়েটিকে খুন করে অভিযুক্তরা। এই ঘটনার এক দিন আগেই বেঙ্গালুরুর পুলিশ কমিশনার মহিলাদের ‘‌১০০ শতাংশ’‌ নিরাপত্তার আশ্বাস দিয়ে একগুচ্ছ পদক্ষেপের কথা বলেন। বলেন, কোনও মেয়ে বিপদে পড়ে পুলিশকে ফোন করলে মাত্র মাত্র ৭ সেকেন্ডে সাড়া মিলবে। এসএমএসেও পুলিশের সাহায্য পাওয়া যাবে। কালবুর্গির ঘটনায় তদন্ত শুরু হয়েছে। দোষীকে দ্রুত ধরার আশ্বাসও দিয়েছেন এসপি।  
বিহারের বক্সারের ঘটনাও সোমবার রাতের। এখানে হায়দরাবাদের সেই পশু–‌চিকিৎসকের ধর্ষণ ও খুনের ছায়া। পাটনা থেকে ১০০ কিলোমিটার দূরে বক্সারের ইটাদি থানায় এক শুনশান মাঠে আজ সাতসকালে এক কিশোরীর আধপোড়া দেহ উদ্ধার হয়েছে। দেহ শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি। মৃতা নাবালিকা না সাবালিকা, তা‌ও জানা যায়নি। তঁার মাথায় গুলির আঘাত দেখে বোঝা গেছে, ধর্ষণের পর গুলিতে খুন করে পুড়িয়ে দেওয়া হয়।
লজ্জার এই তালিকার শেষ নেই। উত্তরপ্রদেশের শোনভদ্রের ৭০ বছরের এক বৃদ্ধাকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। সোমবার পুলিশ অভিযুক্ত রাম কিষণকে গ্রেপ্তার করেছে। 
সবচেয়ে ভয়ঙ্কর ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের আজমগড়ে। এই ঘটনা এক সপ্তাহ আগের। আজমগড়ের মুবারকপুরে এক ঘুমন্ত দম্পতি ও তঁাদের চার মাসের শিশুপুত্রকে প্রথমে খুন করে অভিযুক্ত নাসিরুদ্দিন। তার পর প্রথমে মৃতা মহিলাকে ৩ ঘণ্টা ধরে ধর্ষণ করে।‌ তার পর মৃতার ১০ বছরের মেয়েকে। গোটা ঘটনার ভিডিও–‌ও করে। মানসিক বিকারগ্রস্ত নাসিরুদ্দিন ধরার পড়ে জেরার মুখে সব কবুল করেছে। জানিয়েছে, হরিয়ানা, দিল্লি, পশ্চিমবঙ্গেও এমন অনেক ঘটনা ঘটিয়েছে সে। সব ক্ষেত্রেই তার হাতিয়ার ছুরি আর 
ভারী পাথর।‌‌
রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদব প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে বলেন, ‘‌উত্তরপ্রদেশে মেয়েদের অবস্থা দিন–‌দিন খারাপ হচ্ছে। রোজ ধর্ষণের ঘটনা ঘটছে। ক্ষমতায় আসার পরও বেটি বচাও বেটি পঢ়াও–‌এর প্রচারকেরা অমানবিক ঘটনা রুখতে ব্যর্থ হচ্ছে। নাবালিকারাও নৃশংসতার শিকার।’‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top