আজকালের প্রতিবেদন: বাংলায় কোনও রেলরুট বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে না। যা চালু ছিল তা আগের মতোই চলবে। বুধবার এ কথা জানান পূর্ব রেলের জেনারেল ম্যানেজার হরীন্দ্র রাও। এদিন রেলের বাজেট নিয়ে এক সাংবাদিক সম্মেলনে এ কথা জানিয়েছেন তিনি। 
এ বিষয়ে পূর্ব রেলের জেনারেল ম্যানেজার বলেন, ‘‌রাজ্যে কোনও রেলরুট বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে না। যা চালু ছিল তা আগের মতোই চলবে।’‌ 
চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে রেল মন্ত্রক থেকে রাজ্যের আটটি রেলরুট বন্ধ করে দেওয়ার এক প্রস্তাব রাজ্য সরকারের কাছে পাঠানো হয়। প্রস্তাবের পিছনে রেলের যুক্তি, এগুলি সব ক্ষতিতে চলছে। এগুলি চালাতে গেলে রাজ্যকে পঞ্চাশ শতাংশ ক্ষতি বহন করতে হবে। রাজ্য সরকারের তরফে এই প্রস্তাবের তীব্র প্রতিবাদ করা হয়। যে আটটি রেলরুটের কথা প্রস্তাবে বলা হয়েছিল সেগুলি হল, বর্ধমান–কাটোয়া, সোনারপুর–ক্যানিং, শান্তিপুর–নবদ্বীপঘাট, বারাসত–হাসনাবাদ, বারুইপুর–নামখানা, বালিগঞ্জ–বজবজ, কল্যাণী–কল্যাণী সীমান্ত এবং ভীমগড়–পলাসতলি। 
এদিন হরীন্দ্র রাও বলেন, কোনও রেলরুট বন্ধ করা হচ্ছে না। 
এদিন রেলওয়ে বাজেটে পূর্ব রেলের বরাদ্দ সম্পর্কে বলতে গিয়ে তিনি বলেন, চলতি বছরে পূর্ব রেলের জন্য ২৯৫৭ কোটি টাকা বাজেটে বরাদ্দ হয়েছে। গত বছরের তুলনায় ১২৫ কোটি টাকা বেশি। 
হরীন্দ্র রাও বলেন, ‘‌যে বিষয়গুলির ওপর জোর দেওয়া হচ্ছে সেগুলি হল যাত্রী স্বাচ্ছন্দ্য, নিরাপত্তা এবং পরিকাঠামো তৈরি।’‌ 
বাজেটে রাজ্যে দুটি রেলওয়ে ওভারব্রিজ তৈরির অনুমোদন মিলেছে বলে জানিয়েছেন জেনারেল ম্যানেজার। এই ব্রিজ দুটির একটি মশাগ্রামে এবং অপরটি সীতারামপুরে হবে। এর পাশাপাশি কলকাতা স্টেশনে অভিবাসন দপ্তরটির আরও উন্নতি করা হবে। বিভিন্ন স্টেশনে লিফট এবং চলমান সিঁড়ির বিষয়টিকে এই বাজেটে জোর দেওয়া হয়েছে। টিকিয়াপাড়া কোচিং ইয়ার্ডটিকে আরও উন্নত করে তোলা হবে। সেই সঙ্গে পূর্বাঞ্চলের ১১০৫টি স্টেশনে ভিডিওর মাধ্যমে নজরদারি চালানো হবে। দমদমে অনুমোদিত রেলওয়ে ওভারব্রিজটি এখনও তৈরি না হওয়ার জন্য হরীন্দ্র রাও বলেন, কাজ করতে গিয়ে দেখা গেছে শিয়ালদামুখী কয়েকটি রেললাইন এর ফলে বন্ধ হতে পারে। এটা যাতে না করতে হয়, সে কারণেই আমরা সব দিক খতিয়ে দেখে কাজটি শুরু করতে চাইছি। 
এদিন গোঘাটের ভাবাদিঘির ওপর রেললাইন পাতা নিয়ে জেনারেল ম্যানেজার বলেন, জমি সমস্যার সমাধান না হওয়া পর্যন্ত রেল ওখানে কাজ শুরু করবে না। সমস্যা সমাধানের জন্য রাজ্য সরকার যথেষ্ট সহযোগিতা করছে।‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top