পিটিআই, লখনউ:  একেবারে নতুন ঢঙে এবার প্রচারে বেরবেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। লখনউতে রোড শো করেছেন। ভাল সাড়া পেয়েছেন। তবে রোড শো তো অভিনব কিছু নয়। এবার তাঁর জন্য ভেবে ভেবে সত্যিই অভিনব একটি পথ বের করেছে কংগ্রেস। সেটা হল জলপথ। নৌকা পথে প্রচারে বেরচ্ছেন প্রিয়াঙ্কা। সোমবার থেকে। এলাহাবাদ থেকে ভেসে পড়বেন গঙ্গার বুকে। মোটরবোটে। ভাদোই, মির্জাপুর হয়ে বুধবার বারাণসীতে শেষ করবেন যাত্রা।
প্রিয়াঙ্কাকে কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক পদে এনে উত্তরপ্রদেশের পূর্বাঞ্চলের দায়িত্ব দিয়েছেন দাদা রাহুল গান্ধী। কংগ্রেসের আশা, উত্তরপ্রদেশে দলের নড়বড়ে দশা এতে কেটে যাবে। পুরুজ্জীবিত হবে প্রাচীন দলটি। প্রিয়াঙ্কার প্রচার–‌পরিকল্পনাতেও তাই নজর কাড়ার আয়োজন। নদীপথে ১১০ থেকে ১১২ কিমি যাত্রায় প্রিয়াঙ্কা পৌঁছতে চান এমন অনেক প্রত্যন্ত অঞ্চলে, যেখানে রাজনৈতিক নেতাদের হাঁকডাক সেরকম পৌঁছয় না, এরকমই বলছেন রাজ্যের নেতারা। নদীপথে যেতে যেতে দু’‌পারের গ্রামে নামবেন, ভাঙা পথ ধরে ঢুকে যাবেন ভেতরে, কথা বলবেন অবহেলিত মানুষদের সঙ্গে। জানান প্রদেশ রাজ্যের কংগ্রেস মুখপাত্র দ্বিজেন্দ্র ত্রিপাঠী এবং অংশু আওয়াস্থি। তাঁদের আশা, কংগ্রেস নেতৃত্বের আন্তরিকতা এতে তুলে ধরা যাবে। বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য, গঙ্গাতীরের গ্রামাঞ্চলে মাল্লা, কেওয়ট, নিষাদ ইত্যাদি মাঝি, মৎস্যজীবী ও কৃষিজীবী সম্প্রদায়ের কাছে পৌঁছতে চাইছে কংগ্রেস। কিন্তু তার জন্য যে নদীপথই জরুরি, তা নয়। তবে নৌপথে গেলে একটা অভিনবত্ব বা চমক আসে।
আগামী রবিবারই প্রিয়াঙ্কা আসছেন লখনউতে, পরদিন যাবেন এলাহাবাদে, যার নতুন নাম এখন প্রয়াগরাজ। যাওয়ার কথা পূর্বপুরুষের স্মৃতিবিজড়িত ঐতিহাসিক আনন্দভবনে। তারপর শুরু হবে যাত্রা। মির্জাপুরে নেমে বিন্ধ্যবাসিনীর মন্দিরে পুজোও দিতে পারেন। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর কেন্দ্র বারাণসীতে পুজো দিতে পারেন কাশী বিশ্বনাথ মন্দিরে। প্রিয়াঙ্কার নৌপথে প্রচারযাত্রার কর্মসূচি জানানো হয়েছে নির্বাচন কমিশনকে। ‌

জনপ্রিয়

Back To Top